প্রয়াত বর্ষীয়ান অভিনেতা-গায়ক শক্তি ঠাকুর। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মাত্র দু'ঘন্টার মধ্যেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। জানা যাচ্ছে, বহুদিন বার্ধক্যজনিত অসুস্থতায় ভুগছিলেন তিনি। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স ছিল ৭৮। সোমবার ভোরের দিকেই শেষকৃত্য সম্পন্ন হয় তাঁর। শক্তি ঠাকুরের বড় মেয়ে মেহুলির ফেসবুক পোস্টের মাধ্যমেই খবরটি প্রকাশ্যে আসে। 

মেহুলি ফেসবুক স্টেটাসে লেখেন, "আমি তো ভুলেই গিয়েছিলাম যে বাবা মায়েরা একদিন চলে যায়। জীবনে কোনোদিনও স্মশানে আসিনি। আজ সবই জীবনে প্রথম বার। বাবা ছাড়া আজ থেকে নতুন জীবন। তুমি কি কোনোদিনও কোনো পাপ করোনি বাবা? নইলে এভাবে দুঘন্টার মধ্যে কে চলে যায়? "ধুর আর ভাল্লাগছেনা" বলে চলে গেলে। সব কিছুতেই তাড়াহুড়োর জন্য কত বকা বকি করতাম। আজ চলে যাওয়ার সময়ও এমন অদ্ভুত তাড়াহুড়ো কে করে বাবা? আমি তো তোমার কার্বন কপি। আমিও তোমারি মতন তাড়াহুড়ো করে চলে যাবো দেখো। কষ্টটা লিখে ফেলতে পারলে বোধহয় নিঃশ্বাস নিতে পারতাম।" 

 

আমি তো ভুলেই গিয়েছিলাম যে বাবা মায়েরা একদিন চলে যায়.... জীবনে কোনোদিনও স্মশানে আসিনি.... আজ সবই জীবনে প্রথম বার.........

Posted by Mehuli Goswami Thakur on Sunday, October 4, 2020

 

বর্ষীয়ান অভিনেতার প্রয়াণের খবরে ইতিমধ্যেই শোকের ছায়া বিনোদন জগতে। প্রথম জীবনে স্কুল শিক্ষক ছিলেন তিনি। ১৯৭৬ সালে পরিচালক তপন সিংহের 'হারমোনিয়াম' ছবিতে নেপথ্য শিল্প হিসাবে প্রথম কাজ করার সুযোগ পান। গানের জগতে জনপ্রিয়তা অর্জন করার পাশাপাশি অভিনয়ের পথচলাও শুরু হয় তাঁর। দাদার কীর্তি, প্রতীক, ভালবাসা ভালবাসা তাঁর অভিনীত ছবিগুলির মধ্যে অন্যতম।