বর্ষীয়ান অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের শারীরিক অবস্থার অবনতি ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে। পুরনো ক্যান্সার শরীরে চেপে বসেছে তাঁর। গত সোমবার অভিনেতার করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে। পরদিন সকালে বেলভিউতে হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। তারপর থেকেই তাঁর চিকিৎসা করছেন সিনিয়র ডাক্তাররা। বেল ভিউয়ের চিকিৎসক অরিন্দর কর বর্তমানে অভিনেতার চিকিৎসা করছেন। 

তিনি জানান, নিউরলজিক্যাল অর্থাৎ স্নায়ুজনিত সমস্যা নতুন করে বৃদ্ধি পেয়েছে অভিনেতার মধ্যে। ক্রমাগত জ্বর এসে চলেছে তাঁর। যার কারণে শারীরিক সুস্থতার অগ্রগতিতে বাধা পাচ্ছে। সর্বক্ষণ আচ্ছন্নের মধ্যে রয়েছেন তিনি। আচ্ছন্নের মধ্যে থাকার দরুণ রাইসটিউব দিয়েই খাওয়ানো হচ্ছে তাঁকে। পুরনো ক্যান্সাও ইতিমধ্যে ছড়িয়েছে ফুসফুস ও মস্তিষ্কে। চিকিৎসকের কথায়, আজ রাতের মধ্যে যদি তাঁর শারীরিক অবস্থার উন্নতি না হলে অভিনেতাকে ভেন্টিলেশনে দিতে হতে পারে। 

এই মুহূর্ত বেলভিউয়ের পুরনো সদস্যের মেডিক্যাল বোর্ড নজর রাখছে অভিনেতার উপর। যেকোনও মূল্যে তাঁকে সুস্থ করার জন্য জোর কদমে চিকিৎসা চালাচ্ছেন তারা। আপাতত সঙ্কটমুক্ত নন বর্ষীয়ান অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। বর্তমানে কোভিড এনসেফেলোপ্যাথিতে ভুগছেন ৮৫ বছর বয়সী অভিনেতা। 

ইতিমধ্যেই দ্বিতীয়বার ফের প্লাজমা থেরাপি দিতে হয়েছে সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়কে। এর আগেও একবার প্লাজমা থেরাপি করা হয়েছিল অভিনেতাকে। সম্প্রতি হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, দ্বিতীয় প্লাজমা থেরাপি করার পর আগের থেকে অনেকটা ভাল ছিলেন অভিনেতা। রবিবারের চেয়ে তাঁর শারীরিক অবস্থার সামান্য উন্নতি দেখা দিয়েছিল প্রথমদিকে। তবে আবারও শারীরিক অবনতি বৃদ্ধি পাচ্ছে।