সুশান্ত সিং রাজপুতের পরিবার নীরবে কেন রয়েছেন। কেন ছেলের আকস্মিক মৃত্যু নিয়ে কথা বলতে চাইছেন না তাঁরা। সিবিআই তদন্তের দাবি করছে না কেন পরিবার। নানা প্রশ্নে জর্জরিত ছিল গোটা পরিবার। অবশেষে বড় পদক্ষেপ নিয়ে বসলেন সুশান্তের বাবা কে কে সিং। পাটনার সেন্ট্রাল জোনের ইন্সপেক্টর সঞ্জয় সিং জানিয়েছেন, রিয়ার চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন সুশান্তের বাবা। 

আরও পড়ুনঃচোখের তলায় কালি, পাপারাৎজিকে দেখেই দৌঁড়, সুশান্তের মৃত্যুর পর এ কী অবস্থা অঙ্কিতার

ভারতীয় দণ্ডবিধি অনুযায়ী, ৩৪০, ৩৪২, ৩৮০, ৪০৬, ৪২০, ৩০৬ ধারায় পাটনায় মামলা দায়ের হয়েছে রিয়ার বিরুদ্ধে। সুশান্তের বাবার শারীরিক অবস্থা তেমন ভাল না হওয়ায় মুম্বই গিয়ে মামলা দায়ের করা সম্ভব হয়নি বলে জানা গিয়েছে। সম্পর্কে থাকাকালীন সুশান্তের থেকে একাধিক টাকা আদায় করা এবং অভিনেতার টাকায় ফূর্তি করার অভিযোগ তোলা হয়েছে মামলায়। প্রায় ২০ দিন আগে মুম্বই পুলিশ রিয়াকে ৮ থেকে ৯ ঘন্টা জেরা করে। রিয়া সুশান্তের সঙ্গে সম্পর্কের কথা পূর্বে অস্বীকার করেছিলেন, পরে জেরায় নিজেদের বিয়ের কথাও খোলসা করেন তিনি। রিয়া সুশান্তের মৃত্যুর এক মাস পর থেকেই সিবিআই তদন্ত নিয়ে অমিত শাহকে সোশ্যাল মিডিয়ায় চিঠি লেখেন। 

আরও পড়ুনঃমুকেশের মন্তব্য ও মহেশের বয়ানে আকাশ-পাতাল তফাত, সুশান্ত-মৃত্যু তদন্তে আরও জোরালো সন্দেহ

আরও পড়ুনঃসুশান্তের মৃত্যু তদন্তে বয়ান দিলেন মহেশ ভাট, থানার সামনে পাপারাৎজির ক্যামেরায় পরিচালক

তাতেও তাঁর বিরুদ্ধে মানুষের ঘৃণা এক ফোঁটাও কমেনি। সুশান্ত ভক্তরা বরাবরই চেয়ে এসেছে রিয়ার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিক সুশান্তের পরিবার। অবশেষে তেমনটাই ঘটল। রিয়ার পাশাপাশি সুশান্তের আরও পাচজন বন্ধুর বিরুদ্ধেও মামলা দায়ের করেছেন কে কে সিং। আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়া, জালিয়াতি এবং চক্রান্ত, এই অভিযোগে মামলা করা হয়েছে সুশান্তের পাঁচ বন্ধুর বিরুদ্ধে। সোমবার বিহার পুলিশের স্মরণাপন্ন হয় সুশান্তের পরিবার। 

আরও পড়ুনঃ'দেশবাসী সুশান্তের মৃত্যুর সিবিআই তদন্ত চাইছে, তোমরা নীরব কেন', জবাব দিলেন শ্বেতা

জানা যাচ্ছে, বিহার পুলিশ ইতিমধ্যেই চারজন সদস্যকে মুম্বই পাঠিয়েছে তদন্তের জন্য। সূত্রের খবর, সুশান্তের পরিবারের সুশান্তের মানসিক অবসাদের যুক্তি মানতে নারাজ। সুশান্তের পরিবারের বক্তব্য অনুযায়ী, তাঁরা সুশান্তের মানসিক অবসাদের বিষয় কিছুই জানতেন না। তাঁর কোনও মানসিক সমস্যা ছিল বলেও তাঁদের মনে হয় না। একাধিক মানুষ সুশান্তকে মানিসক অবসাদ ভুগছে বলে দাবি করে, এই বিষয়টি মেনে নিতে পারেনি তাঁর পরিবার।