ভোট যুদ্ধ উত্তপ্ত নন্দীগ্রাম। বৃহস্পতিবার রাতে তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীদের ওপর হামলা চালন হয় বলে অভিযোগ। তিন তৃণমূল কর্মী জখম হয়েছেন। স্থানীয় হাসপাতালে তাঁদের চিকিৎসা চলছে। আক্রান্তদের মধ্যে একজন অঞ্চল স্তরের নেতাও ছিলেন। তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীদের অভিযোগ বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরাই এই হামলার ঘটনায় জড়িতয যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছেন বিজেপি। 
 
স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীরা জানিয়েছেন তাঁরা দলীয় কর্মসূচি সেরে ফিরছিলেন। সেই সময় তাঁদের গাড়ি লক্ষ্য করে হামলা চালান হয়। গাড়িতে রীতিমত ভাঙচুর করা হয়। স্থানীয়দের দাবি দুটি বাইকে করেই এসেছিল দুষ্কৃতিরা। তৃণমূল কর্মীদের গাড়ি আটকে চলে তাণ্ডব। এক কর্মী হাতে চোট পয়েছে। অন্যজনের মাথায় লেগেছে। যদিও বিজেপি পুরো অভিযোগই অস্বীকার করেছে। 

অন্যদিকে এদিন প্রচারে গিয়ে তৃণমূলের প্রমিলা বাহিনীর বিক্ষোভের মুখে পড়েন বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী। ভেটুরিয়ায় শুভেন্দুর কনভয় আটকে ঝাঁটা জুতো নিয়ে বিক্ষোভ দেখান মহিলারা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ। যদিও বিজেপি দাবি করেছে এটা তৃণমূলের কারসাজি। বিজেপির দাবি একটা সময় সিপিএম শুভেন্দুকে আটকাতে চেয়েছিল। এখন চাইছে তৃণমূল। শুভেন্দু অধিকারীকে এভাবে আটকানো যাবে বলেও দাবি করেছে গেরুয়া শিবির। 

এই কেন্দ্রে তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রার্থী হয়েছে। অন্যদিকে লড়াই করছেন বিজেপির শুভেন্দু অধিকারীর। রাজ্যের ব্যাটেল গ্রাউন্ডে পরিণত হয়েছে নন্দীগ্রাম। কোনও না কোনও ভাবে নিত্য দিনই থাকছে খবের শিরোনামে। রাজ্য ছাড়িয়ে দেশের প্রথম সারির সংবাদ মাধ্যমেরও নজরে রয়েছে বাংলা প্রত্যন্ত এলাকা নন্দীগ্রাম। মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের পাশাপাশি শুভেন্দু অধিকারীও এই আসন থেকে জেতার জন্য মরিয়া প্রয়াস চালাচ্ছে। এই অবস্থায় দলীয় কর্মীরাও প্রার্থী জয়ের জন্য উঠে পড়ে লেগেছে। তাতেই রাজনৈতিক হিংসার আবহ তৈরি হয়েছে বলেও মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।