করোনা সংক্রমণ আটকাতে দেশজুড়ে ২১ দিনের লকডাউন ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। গোষ্ঠী সংক্রমণ যাতে না ছড়ায় তার জন্য দেশবাসীকে বাড়ির বাইরে না যাওয়ার অনুরোধ করছে ভারত সরকার। কিন্তু এসব সত্বেও অনেকেই বেরিয়ে পড়ছেন বাড়ির বাইরে। এমনই ঘটনা ঘটেছিল মুম্বয়ের  শহরতলী কান্দেভালিতে। লকডাউন না মেনেই পথে নেমেছিলেন ছোট ভাই। তার মাশুলও গুনতে হল ওই তরুণকে। করোনা আতঙ্কের জেরে নিজের দাদা হাতেই মরতে হল ছোট ভাইকে।

ছোট ভাইকে  হত্যার অভিযোগে  ইতিমধ্যে ২৮ বছরের ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। জানা যাচ্ছে অভিযুক্তের নাম রাজেশ লক্ষ্মী।  সমতানগর পুলিশ স্টেশনের এক আধিকারিক জানান, রাজেশের ভাই দুর্গেশ পুনের একটি বেসরকারি সংস্থায় কাজ করত। বুধবার রাতে সে বাড়ি ফিরে আসলে তাকে বাড়ি ঢুকতে দিতে রাজি হয়নি বড়ভাই রাজেশ। এই নিয়েই দুই ভাইয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটি শুরু হয়।

লকডাউনের জেরে কাজ নেই শ্রমিকদের, গরিব মানুষদের জন্য ১০০ কোটি অনুদান নীতিশের

লকডাউন উপেক্ষা করে বেরিয়েছিলেন যুবক, চলে গেলেন একেবারে কুমিরের পেটে

গমগম করা ভিক্টোরিয়া যেন একেবারে ভুতুড়ে বাড়ি, খাঁ খাঁ করছে গোটা চত্বর, দেখুন ভিডিও

কোনওভাবেই ছোট ভাইকে বাড়িতে ঢুকতে দেওয়া হবে না তা জানিয়ে দেন রাজেশের স্ত্রীও। এর পরেই দুই তরফের মধ্যে শুরু হওয়া বচসা হাতাহাতির রূপ নেয়। উত্তেজিত রাজেশ  ধারাল অস্ত্র নিয়ে ভাইয়ের উপর চড়াও হয়। 

স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে দুর্গেশকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়। ইতিমধ্যে রাজেশ বিরুদ্ধে ভাইকে খুনের অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছে। 

এদেশে এখনও পর্যন্ত মহারাষ্ট্রে করোনা সংক্রমণের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ১২৪। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ২ জনের শরীরে সংক্রমণের খবর পাওয়া গিয়েছে।