কোভিড -১৯ কেড়ে নিল পদ্মশ্রী পুরস্কারপ্রাপ্ত বিশিষ্ট গুরুবাণী গায়ক, নির্মল সিং খালসা-র প্রাণ-ও। চন্ডিগরের এক হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন তিনি। বুধবারই তাঁর করোনাভাইরাস পরীক্ষা ফল ইতিবাচক এসেছিল। বৃহস্পতিবার ভোরেই তাঁর সব লড়াই শেষ হয়ে যায়। বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর। গুরুবাণী গায়ক হিসাবে তিনিই প্রথম ভারতের চতুর্থ সর্বোচ্চ অসামরিক পুরষ্কার, 'পদ্মশ্রী' পেয়েছিলেন।

হাসপাতালের ডাক্তার প্রভদীপ কৌর জোহাল জানিয়েছেন, বুধবার রাতেই নির্মল সিংয়ের শারীরিক অবস্থার অত্যন্ত অবনতি হওয়ায় তাঁকে ভেন্টিলেটরে রাখা হয়েছিল। বৃহস্পতিবার ভোর চারটের দিকে হৃদরোগে আক্রান্ত হন তিনি। এর পরপরই তাঁর প্রয়াণ ঘটে।

নির্মল সিং খালসা দীর্ঘদিন অমৃতসরের স্বর্ণ মন্দিরের হাজুরি রাগী অর্থাৎ গুরুবাণী গায়ক ছিলেন। দেশে-বিদেশে তাঁর কন্ঠে গুরুবাণী শোনার জন্য মুখিয়ে থাকতেন শিখ সম্প্রদায়ের মানুষ। গত বছর নভেম্বর মাসে তিনি ব্রিটেন সফরে গিয়েছিলেন। সেখান থেকে ফিরে আসার পর দিল্লিতে এবং দেশের অন্যান্য কয়েকটি জায়গায় বড় বড় ধর্মীয় সমাবেশে তিনি বক্তব্যও রেখেছিলেন। গত ১৯ মার্চ চন্ডিগড়ের এক বাড়িতে তিনি তাঁর পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিয়ে একটি কীর্তনেও অংশ নিয়েছিলেন।

তিনি আক্রান্ত জানার পরই করোনাভাইরাস সংক্রমণের কোনও যাতে সম্ভাবনা না থাকে, তার জন্য পঞ্জাব পুলিশ তাঁর আবাসের আশেপাশের গোটা এলাকাটি সিল করে দিয়েছে। তাঁর স্ত্রী, দুই কন্যা, পুত্র, ড্রাইভার এবং অন্যান্য ছয়জন যারা তাঁর সঙ্গে ওই কীর্তনের অনুষ্ঠানে গিয়েছিলেন, তাঁদের প্রত্যেককে চন্ডিগড়ের এক হাসপাতালে কোয়ারেন্টাইন করে রাখা হয়েছে এবং তাদেরও করোনাভাইরাস পরীক্ষা করা হচ্ছে। তাঁর আয়োজিত ধর্মীয় সমাবেশে কারা কারা এসেছিলেন তাদেরও সন্ধান করা হচ্ছে।

নিষিদ্ধ 'করোনাভাইরাস' শব্দটিই, মাস্ক পরলে হাজতবাস, ঘুরছে সাদা পোশাকের পুলিশ

করোনার হাত ধরেই আসছে আরও বড় বিপদ, একসঙ্গে সতর্ক করল তিন বিশ্ব-সংস্থা\

'করোনা করে না বৈষম্য, ইমরান সরকার করে', অমানবিকতার শিকার পাক হিন্দুরা