বিশ্বকাপের শেষ ম্যাচকে স্মরণীয় করে রাখলেন শ্রীলঙ্কার অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউজ। ভারতের বিরুদ্ধে দুরন্ত শতরান করলেন শ্রীলঙ্কার অলরাউন্ডার। মূলত ম্যাথিউজের শতরানের সৌজন্যেই ভারতের সামনে ২৬৫ রানের টার্গেট রাখতে পারল করুণারত্নের দল। 

এ দিন টসে জিতে ব্যাটিং নেন শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক। কিন্তু শুরুতেই শ্রীলঙ্কার দুই ওপেনারকে ফিরিয়ে দেন যশপ্রীত বুমরা। এর পরে কিছুক্ষণের মধ্যেই অভিষ্কা ফার্নান্ডো এবং কুশল মেন্ডিসকে ফিরিয়ে দেন হার্দিক পান্ডিয়া। একসময়ে ৫৫ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে ধুঁকছিল লঙ্কা বাহিনী। 

সেখান থেকেই পাল্টা লড়াই শুরু করেন ম্যাথিউজ এবং থিরিমানে। ১২৮ বলে ১১৩ রানের দুরন্ত ইনিংস খেলেন ডান হাতি ম্যাথিউজ। অর্ধশতরান করেন থিরিমানেও। পঞ্চম উইকেটে দু' জনে মিলে ১২৪ রান যোগ করেন।

 শেষ পর্যন্ত বুমরাই ফেরান ম্যাথিউজকে। এ দিনও যথারীতি ভারতীয় বোলারদের মধ্যে সেরা পারফরম্যান্স বুমরারই। ইনিংসের শুরুতে টানা ষোলটি ডট বল করেন ভারতীয় পেসার। দশ ওভারে ৩৭ রান দিয়ে  ৩ উইকেট নেন তিনি। তুলনায় অনেকটাই নিষ্প্রভ ছিলেন ভুবনেশ্বর কুমার। নির্ধারিত পঞ্চাশ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ২৬৪ তোলে শ্রীলঙ্কা। 

ভারতীয় দলের হয়ে এ দিন প্রথমবার বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পেলেন রবীন্দ্র জাডেজা। দশ ওভারে ৪০ রান দিয়ে ১ উইকেট নেন তিনি। তবে দলে ফিরেও সেভাবে নজর কাড়তে ব্যর্থ কুলদীপ। দশ ওভারে ৫৮ রানের বিনিময়ে ১ উইকেট পান তিনি। 

শেষ চারের টিকিট আগেই নিশ্চিত হয়ে গিয়েছে। তবু শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে এই ম্যাচের গুরুত্ব বিরাট কোহলিদের কাছে অপরিসীম। কারণ ভারত যদি এই ম্যাচে জেতে এবং অস্ট্রেলিয়া যদি দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে পরাজিত হয়, সেক্ষেত্রে গ্রুপ শীর্ষে থাকবেন বিরাট কোহলিরা। আর তাহলে সেমি ফাইনালে শক্তিশালী ইংল্যান্ডের বদলে নিউজিল্যান্ডের মুখোমুখি হবে ভারত।