বুধবার প্রাক্তন অস্ট্রেলিয়ান বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক মাইকেল ক্লার্ক এবং তার স্ত্রী সরকারি ভাবে তাদের বিবাহ- বিচ্ছেদের ঘোষণা করলেন। বেশ কিছুদিন আলাদা থাকার পর তারা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।  দুজনেই জানিয়েছেন পরস্পরের প্রতি সম্পূর্ণ শ্রদ্ধা রেখে তারা এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছেন। তারা মনে করছেন এই সিদ্ধান্তই তাদের দুজনের এবং তাদের মেয়ের পক্ষে সবথেকে ভালো হবে।

সাত বছর আগে ২০১২ সালে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন মাইকেল ক্লার্ক এবং কাইলি। তখন পন্টিংয়ের বদলে সদ্য অধিনায়ক হয়েছেন মাইকেল ক্লার্ক। ব্যক্তিগতভাবেও তিনি নিজের খেলায় চূড়ান্ত ফর্মে ছিলেন। কাইলি ছিলেন একজন মডেল এবং টিভি সঞ্চালক। ২০১২ এর ১৫ ই মে দুজনের বিয়ে সম্পন্ন হয়েছিল। কিছুদিন আগে অনেক মহল থেকে আশঙ্কা করা হচ্ছিল যে হয়তো ক্লার্ক এবং কাইলির বিবাহবিচ্ছেদ ঘটতে পারে শীঘ্রই। কিন্তু সেই সময় সেই সকল ধারণাকে ধামাচাপা দিয়ে কাইলি জানিয়েছিলেন তার এবং ক্লার্কের মধ্যে কোনো সমস্যা নেই। তারপরেও এখন এই ঘটনা থেকে অনেকেরই কপালে ভাঁজ পড়েছে।

এই সিদ্ধান্ত অনেক কঠিন ছিল বলে জানিয়েছেন তিনি। তাদের বন্ধু এবং পরিবারের লোকজন কে ধন্যবাদ জানিয়েছেন ক্লার্ক এবং কাইলি। তাঁরা পাশে ছিলেন বলেই এইরকম একটি কঠিন সিদ্ধান্ত তারা নিতে পেরেছেন। এইবার সংবাদমাধ্যমকে তারা ব্যাপারটি নিয়ে গোপনীয়তা বজায় রাখতে অনুরোধ করেছেন ক্লার্ক ও কাইলি। তাদের মতে ব্যাপারটি নিয়ে বেশি আলোচনা না করলে তাদের পরবর্তী জীবনে মনোযোগ দিতে সুবিধা হবে।

কাইলির আগে মডেল লারা বিঙ্গেলের সাথে সম্পর্ক ছিল ক্লার্কের। ২০১০ অবধি স্থায়ী ছিল সেই সম্পর্ক। প্রসঙ্গত অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ১১৫ টি টেস্ট খেলেছেন ক্লার্ক। তাতে তিনি করেছেন ৮৬৪৩ রান। করেছেন ২৮ টি শতরান। এছাড়া অস্ট্রেলিয়ার ২০১৫ সালের বিশ্বকাপ জয়ী দলের অধিনায়কত্ব করেছেন তিনি। ফাইনালে তিনি ছিলেন সর্বোচ্চ স্কোরার।