গতবারের চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া, তারপর বাংলাদেশ আর তারপর বৃহস্পতিবার নিউজিল্যান্ড - পরপর তিন ম্যাচ জিতে আইসিসি মহিলা টি২০ বিশ্বকাপ ২০২০-এর সেমিফাইনালে জায়গা করে নিল ভারতের মহিলা ক্রিকেট দল। এদিন ওপেনা শেফালি ভার্মার ৪৬ রানের দুর্দান্ত ইনিংসে ভর করে ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৩৩ রান তুলেছিল ভারত। টি২০ ক্রিকেটে রানটা বড় না হলেও রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে নিয়ন্ত্রিত বোলিং-এ নিউজিল্যান্ডকে ১২৯/৫-এই আটকে রাখল ভারতীয় বোলাররা।

এদিন, শেফালি ভার্মা খুব ভালো ব্যাট করলেও বাকি ব্যাটাররা সেভাবে নিজেদের মেলে ধরতে পারেননি। আরও একবার মাঝের ওভারে ধস নামে। সেই কারণেই ১৩৩-এর বেশি রানটা এগোয়নি। তবে চলতি বিশ্বকাপে ভারতীয় বোলাররা, বিশেষ করে স্পিনাররা যেরকম ফর্মে আছেন, তাতে এই রানটাই তাদের জন্য যথেষ্ট ছিল। কিন্তু, তা সত্ত্বেও কিউই ব্যাটার অ্যামেলিয়া কের ১৯ বলে ৩৪ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলে উত্তেজনা বাড়িয়ে দিয়েছিলেন।

শেষে ওভারে নিউজিল্যান্ডের জেতার জন্য ১৬ রান দরকার ছিল। শেষ বলে হিসেব দাঁড়ায় ৫ রান করলেই জিতবে কিউইরা। কিন্তু সেই রানটা করতে দেননি রাধা যাদব। এদিন পাঁচ ভারতীয় বোলারই একটি করে উইকেট নিয়েছেন। প্রত্যেকেই দারুণ আঁটোসাঁটো বলও করেছেন।

সেমিফাইনালে উঠে গেলেও কিন্তু ভারতের ব্য়াটিং নিয়ে চিন্তা থাকবে। মেঘলা আবহাওয়ায় ভারতকে প্রথমে ব্য়াট করতে ডাকার পর শুরুটা ভালো করতে পারেননি স্মৃতি মান্ধানা (১১)। তবে উল্টোদিকে আগের দুই ম্যাচের মতোই আক্রমণাত্মক ছিলেন শেফালি। এদিন তিনি ৪টি চার ও ৩টি ছয় মারেন। তাঁর সঙ্গে জুটি বাঁধেন তানিয়া ভাটিয়া (২৩)। দুজনে ৬ ওভারে ৪৯ রান তুলেছিলেন। তানিয়া কিন্তু পাওয়ার প্লে-র ওভারে অনেক বল নষ্ট করেছেন।

এরপরই আসা-যাওয়ার পালা শুরু হয়। প্রথমে যান তানিয়া। তারপর জেমাইমা (১০), হরমনপ্রিত (১), দীপ্তি (৮), ভেদা (৬) - কেউই দাঁড়াতে পারেননি। শেষ দিকে ৯ নম্বর নামা রাধা যাদব ৯ বলে ১॥৪ রান করায় ভারতের রান ১৩০ পার করে। সেমিফাইনালের আগে ভারত-কে ব্যাটিং নিয়ে ভাবতেই হবে। আর অধিনায়িকা হরমনপ্রিত-এর তাঁর পরিচিত ফর্মে ফেরাটা খুব জরুরি।