মহাসপ্তমীর দিন এল দুঃসংবাদ। হৃদরোগে আক্রান্ত হলেন কিংবদন্তি ভারতীয় ক্রিকেটার কপিল দেব। নয়াদিল্লির একটি হাসপাতালে তাঁকে ভর্তি করা হয়েছে। চিকিৎকরা তড়িঘড়ি সিদ্ধান্ত নিয়ে তাঁর অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি অপারেশন করছেন বলে জানা গিয়েছে। অপারেশনের পর ৬১ বছরের 'হরিয়ানা হারিকেন' আপাতত স্থিতিশীল অবস্থায় রয়েছেন বলে জানিয়েছেন

জানা গিয়েছে গতরাতেই কপিল শারীরিক অস্থিরতার কথা জানিয়েছিলেন। তারপরই তাঁকে এসকর্টস হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তাঁর কিছু পরীক্ষা করা হয়। স্টেন্ট বসানোর পর তিনি এখন ভাল আছেন। দিন কয়েকের মধ্যেই তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হবে বলে আশা করা হচ্ছে। বাড়ি পেরার পরও ভারতের প্রথম বিশ্বজয়ী অধিনাযককে অন্তত তিন সপ্তাহ বিশ্রাম নিতে হবে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

আকস্মিক এই খবর পেয়ে বিহ্বল সোশ্যাল মিডিয়া। বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে ভারতীয় ক্রিকেটের ভক্তরা 'হরিয়ানা হারিকেন'এর দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন। কারণ ভারতীয় ক্রিকেট আর কপিল দেব তো সমার্থক। চলতি ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ ২০২০-তেও বিশেষজ্ঞ হিসাবে কাজ করছিলেন কপিল দেব। সেই সঙ্গে এই প্রাক্তন ভারতীয় অধিনায়ক জড়িত ছিলেন ডায়াবেটিস রোগীদের নিয়ে বিভিন্ন কর্মসূচিতেও।

ভারতীয় ক্রিকেটে কপিল দেবের এক উজ্জ্বলতম জ্যোতিষ্ক। কপিলের অধীনেই ১৯৮৩ সালের ভারত প্রথম একদিনের ক্রিকেটের বিশ্বকাপ জিতেছিল। তাও ফাইনালে সেইসময়ের প্রবল পরাক্রমী ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে। সেই বিশ্বকাপে ৬০.৬ গড়ে ৩০৩ রান করার পাশাপাশি ১২টি উইকেট দখল করেছিলেন কপিল দেব নিখাঞ্জ। সেইসঙ্গে ৮ ম্যাচে নিয়েছিলেন ৭টি ক্যাচ। বর্তমান ক্রিকেট বিশ্বে ভারত যে অন্যতম পাওয়ার হাউস, তার সূচনা হয়েছিল ওই বিশ্বজয়ে। দীর্ঘ ১৬ বছরের ক্রিকেট জীবনে কপিল দেব ১৩১ টেস্ট এবং ২২৫ ওয়ানডে খেলেছিলেন। একসময় ইমরান খান, ইয়ান বথাম এবং রিচার্ড হ্যাডলির সঙ্গে তাঁকে সমসাময়িক ক্রিকেটের শ্রেষ্ট অলরাউন্ডারদের একজন বলে বিবেচনা করা হত।