৯৮ বছর বছর বয়েসে প্রয়াত অভিনেতা দিলীপ কুমার। ভারতীয় সিনেমায় এক যুগের সমাপ্তি। দীর্ঘদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন তিনি। বুধবার সকাল সাড়ে সাতটা নাগাদ মুম্বইয়ের হাসপাতালে প্রয়াণ হয় তাঁর। 

 

 

 

শেষ সময়ে এই বর্ষীয়ান অভিনেতার পাশে ছিলেন তাঁর স্ত্রী সায়রা বানু। মুম্বইয়ের হিন্দুজা হাসপাতালে দীর্ঘদিন ধরেই ভর্তি ছিলেন প্রবীণ এই অভিনেতা। গত ৩০ শে জুন শ্বাসকষ্টের জন্য আবারও দিলীপ কুমারকে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়। তার আগের দিন রাত থেকে ৯৮ বছরের এই অভিনেতার শ্বাসকষ্ট শুরু হয়।  মুম্বাইয়ের খার-এ 'হিন্দুজা হাসপাতাল'-এর আইসিইউ তে ভর্তি করা হয় অভিনেতা দিলীপ কুমারকে।

এর আগে ৬ জুন এই একই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন দিলীপ কুমার। তখনই জানা গিয়েছিল, করোনা নয়, জল তাঁর ফুসফুসে জল জমেছে। তখন তাঁর ট্যুইটার হ্যান্ডেলে জানানো হয়, কোনও গুজবে যেন কান না দেওয়া হয়। ভালো আছেন অভিনেতা। তার  ১২ দিন পর ছাড়া পেয়েছিলেন তিনি।

 

কিন্তু নতুন করে শ্বাসকষ্ট  শুরু হওয়ায় ফের তাঁকে একই হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়। তাঁর আসল নাম ইউসুফ খান। দিলীপ কুমার পরিচিত ছিলেন বলিউডের ট্র্যাডেজি কিং হিসেবে। প্রায় ছয় দশক ধরে বলিউডের কার্যত রাজত্ব করেছেন দিলীপ কুমার। ৬৫টিরও বেশি ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি, তারমধ্যে বেশ কয়েকটির চরিত্র ভারতীয় সিনেমার ইতিহাসে আইকনিক হয়ে থেকে যাবে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য দেবদাস (১৯৫৫), নয়া দৌড় (১৯৫৭), মুঘল-এ-আজম (১৯৬০), গঙ্গা যমুনা (১৯৬১), ক্রান্তি (১৯৮১), করমা (১৯৮৬)। ১৯৯৮ সালে শেষবার তাঁকে বড়পর্দায় দেখা গিয়েছিল। তাঁর শেষ ছবি কিলা।