পরিচালকঃ ক্রিস বাক

কণ্ঠ অভিনয়ঃ জেনিফার লি, ক্রিস্টন বেল, ইভেন রিচেল উড

গল্পঃ তিন বছরের ইতিহাস উষ্কেই প্রকাশ্যে এসেছে এই ছবি। যেখানে দুই বোনের সম্পর্কের মধ্যেই ফুঁটে ওঠে এক সুন্দর রূপকথার গল্প। এলসা আর এলার সম্পর্কের রসায়ন, তাঁদের পরিস্থিতির সঙ্গে মোকাবিলা করার ক্ষমতাই জায়গা করে নিয়েছে এই পর্বের দ্বিতীয় অধ্যায়ে।  

কণ্ঠ অভিনয়ের বিশ্লেষণঃ ছবির প্রথম অধ্যায় দেখার পর থেকেই দর্শকদের মধ্যে ছবি ঘিরে একাধিক উত্তেজনা ছড়িয়েছিল। সেই উত্তেজনাই বজায় রেখে এবার প্রকাশ্যে এল ছবির দ্বিতীয় অধ্যায়। সকলের নজর কেড়ে নস্টালজিয়া কণ্ঠস্বরই যেন ধরা দিল ছবির পর্দায়। যেখানে প্রতিটি চরিত্রের পরিচিতিই হয়ে উঠল অভিনেতা-অভিনেত্রীদের কণ্ঠস্বর। 

চিত্রনাট্যঃ অচেনা এক কণ্ঠস্বরের আভাস কোথা থেকে আসছে, তা নিয়ে একাধিক প্রশ্ন জাগিয়ে শুরু গল্প। ফ্রোজেন ২ এর মধ্যে দিয়েই যেন চরিত্রের আরও কাছাকাছি পৌঁছনো সম্ভব হল এই গল্পের মধ্যে দিয়ে। অ্যাকশন, সম্পর্ক, মজা, রহস্য মিলিয়ে গল্পের প্রতিটি ধাপেই নতুন এক অভিজ্ঞতা। যা পরতে পরতে দর্শক উপভোগ করলেন এই ছবিতে। 

সিনেমাটোগ্রাফিঃ ছবিতে গ্রাফিক্সের অনবদ্য কাজ চোখে পড়ে। কেবল তাই নয়, সঙ্গে আরও বেশি নজর কাড়ে বিভিন্ন রঙের ব্যবহার। যা দিয়ে ছবিটিতে আরও বেশি বাস্তব সম্মত করে তোলা সম্ভব হয়েছে। ছবিতে কস্টিউম থেকে সেট, দুইয়ের ব্যবহারই সকলের মন কাড়ে। সব মিলিয়ে আগের অধ্যায়কেও ছাপিয়ে গেল এই ছবি। 

পরিচালনাঃ পরিচালনার ক্ষেত্রে কোনও রকম খামতি রাখেননি পরিচালক। ছবিতে অনবদ্য মাউজিকের ব্যবহার করা হয়েছে। যা সকলেরই মন কাড়ে। সঙ্গে ছবির সিক্যুয়েন্স গুলিকেও খুব যত্নের সঙ্গে তৈরি করতে দেখা যায়। প্রথম থেকেই ছবির সঙ্গে একাত্ম বোধ করা, পাশাপাশি গল্পের মোড়ের সঙ্গে মনোসংযোগ ক্রমেই বাড়তে থাকে দর্শকদের। ফলে ছবিটিকে নিজের একশো শতাংশ দিয়ে পর্দায় তুলে ধরলেন পরিচালক।