সাম্বার দেশে মোদী, আপনিও ঘুরে আসুন ছবির মতো এই পাঁচ ব্রাজিলিয় শহরে, লাগবে না ভিসাও

First Published 12, Nov 2019, 8:37 PM

মঙ্গলবার বিকেলে সাম্বার দেশ অর্থাৎ ব্রাজিলে রওনা হলেন প্রদানমন্ত্রী মোদী। ১১তম ব্রিকস সম্মেলনে যোগ দেবেন তিনি। এর পাশাপাশি চিন, রাশিয়া ও ব্রাজিল - এই তিন দেশের রাষ্ট্রপ্রধানদের সঙ্গেও তিনি আলাদা করে বৈঠক করবেন। প্রধানমন্ত্রীর হাতে সময় খুব কম, তাই হয়তো ঘোরা হবে না, নাহলে কিন্তু ছবির মতো দেশ ব্রাজিল। গত মাসেই ব্রাজিল সরকার জানিয়ে দিয়েছে সেই দেশে যেতে গেলে ভারতীয়দের আর পাসপোর্টও লাগবে না। কাজেই আপনিও কিন্তু ঘুরে আসতে পারেন ব্রাজিলের এই অপূর্ব সুন্দর পাঁচ শহর থেকে।

রিও ডি জেনেইরো - এক বিশাল সমুদ্র তীরবর্তী ব্রাজিলিয় শহর হল রিও ডি জেনেইরো। এর নৈস্বর্গিক সৌন্দর্য ভাষায় প্রকাশ করা যায় না। এক-দুই পা দূরে দূরেই রয়েছে দর্শনীয় বিভিন্ন স্থান। তবে সবচেয়ে বড় আকর্ষণ অবশ্যই এই শহরের অন্তহীন সমুদ্র সৈকত। আর যদি পার্টি করা পছন্দ করেন, তাহলে এখানে বেশ কয়েকটা থাকতেই হবে। সারা বছরই বেলাভূমিতে চলে পার্টি।

রিও ডি জেনেইরো - এক বিশাল সমুদ্র তীরবর্তী ব্রাজিলিয় শহর হল রিও ডি জেনেইরো। এর নৈস্বর্গিক সৌন্দর্য ভাষায় প্রকাশ করা যায় না। এক-দুই পা দূরে দূরেই রয়েছে দর্শনীয় বিভিন্ন স্থান। তবে সবচেয়ে বড় আকর্ষণ অবশ্যই এই শহরের অন্তহীন সমুদ্র সৈকত। আর যদি পার্টি করা পছন্দ করেন, তাহলে এখানে বেশ কয়েকটা থাকতেই হবে। সারা বছরই বেলাভূমিতে চলে পার্টি।

ইলা গ্রান্দে - রিও ডি জেনেইরো থেকে মাত্র দু'ঘন্টা দূরেই পরে ইলা গ্রান্দে। তবে এই শহরের মেজাজ একেবারেই রিও ডি জেনেইরো র বিপরীতধর্মী। এই দ্বীপ-নগরীতে কোনও পাকা রাস্তাঘাট নেই, সেখানে চলে না গাড়িঘোরাও। কাচের মতো স্বচ্ছ সমুদ্র, সাদা বালির সৈকত এবং স্নিগ্ধ বনাঞ্চলেই ঢাকা দ্বীপটি।

ইলা গ্রান্দে - রিও ডি জেনেইরো থেকে মাত্র দু'ঘন্টা দূরেই পরে ইলা গ্রান্দে। তবে এই শহরের মেজাজ একেবারেই রিও ডি জেনেইরো র বিপরীতধর্মী। এই দ্বীপ-নগরীতে কোনও পাকা রাস্তাঘাট নেই, সেখানে চলে না গাড়িঘোরাও। কাচের মতো স্বচ্ছ সমুদ্র, সাদা বালির সৈকত এবং স্নিগ্ধ বনাঞ্চলেই ঢাকা দ্বীপটি।

সাও পাওলো - ব্রাজিলের বৃহত্তম শহর সাও পাওলো। এই তালিকায় থাকা অন্যান্য শহরগুলির মতো প্রাকৃতিক সৌন্দর্য না থাকলেও পর্যটকদের ভাল লাগে এমন সব কিছুই মেলে এই শহরে। এটি ব্রাজিলের অর্থনৈতিক রাজধানী। এর সাংস্কৃতিক এবং স্থাপত্যগত ঐতিহ্য রয়েছে। একই সঙ্গে রয়েছে গগনচুম্বী ভবন, নিও-গথিক শৈলির ক্যাথিড্রাল এবং ঔপনিবেশিক শৈলির গীর্জা। আর এখনকার নাইটলাইফ-ও অন্যতম আকর্ষণ।

সাও পাওলো - ব্রাজিলের বৃহত্তম শহর সাও পাওলো। এই তালিকায় থাকা অন্যান্য শহরগুলির মতো প্রাকৃতিক সৌন্দর্য না থাকলেও পর্যটকদের ভাল লাগে এমন সব কিছুই মেলে এই শহরে। এটি ব্রাজিলের অর্থনৈতিক রাজধানী। এর সাংস্কৃতিক এবং স্থাপত্যগত ঐতিহ্য রয়েছে। একই সঙ্গে রয়েছে গগনচুম্বী ভবন, নিও-গথিক শৈলির ক্যাথিড্রাল এবং ঔপনিবেশিক শৈলির গীর্জা। আর এখনকার নাইটলাইফ-ও অন্যতম আকর্ষণ।

পারাতি - অরণ্যদেবের কিলাউই-এর বেলাভূমি কথা মনে করিয়ে দেয় পারাতির বেলাভূমিগুলি। একেবারে সোনালি বালিতে মোড়া। রিও ডি জেনেইরো এবং সাও পাওলো মধ্যে অবস্থিত এই ছোট্ট শহর এমনিতে প্রশান্তির জন্য বিখ্যাত তবে সৈকতে চলে উদ্দাম পার্টি। এই শহরের ঔপনিবেশিক স্থাপত্যগুলিও পর্যটকদের অন্যতম আকর্ষণ। পাথর বসানো রাস্তাগুলির বেশিরভাগই গিয়ে পড়েছে সমুদ্র সৈকতেই।

পারাতি - অরণ্যদেবের কিলাউই-এর বেলাভূমি কথা মনে করিয়ে দেয় পারাতির বেলাভূমিগুলি। একেবারে সোনালি বালিতে মোড়া। রিও ডি জেনেইরো এবং সাও পাওলো মধ্যে অবস্থিত এই ছোট্ট শহর এমনিতে প্রশান্তির জন্য বিখ্যাত তবে সৈকতে চলে উদ্দাম পার্টি। এই শহরের ঔপনিবেশিক স্থাপত্যগুলিও পর্যটকদের অন্যতম আকর্ষণ। পাথর বসানো রাস্তাগুলির বেশিরভাগই গিয়ে পড়েছে সমুদ্র সৈকতেই।

ফ্লোরিয়ানোপোলিস - মোট ৪২ টি সোনালি বালির সমুদ্র সৈকত নিয়ে এই দ্বীপ ব্রাজিলের অন্যতম জনপ্রিয় স্থান। এই মনোরম দ্বীপে এলে মনে হতে পারে সম্পূর্ণ অন্য এক পৃথিবীতে এসে পড়েছেন। আর যদি অ্যাডভেঞ্চার প্রিয় হন, তাহলে 'লাগোইনা ডো লেস্তে'-তে পায়ে হেঁটে ঘুরতে পারেন।

ফ্লোরিয়ানোপোলিস - মোট ৪২ টি সোনালি বালির সমুদ্র সৈকত নিয়ে এই দ্বীপ ব্রাজিলের অন্যতম জনপ্রিয় স্থান। এই মনোরম দ্বীপে এলে মনে হতে পারে সম্পূর্ণ অন্য এক পৃথিবীতে এসে পড়েছেন। আর যদি অ্যাডভেঞ্চার প্রিয় হন, তাহলে 'লাগোইনা ডো লেস্তে'-তে পায়ে হেঁটে ঘুরতে পারেন।

loader