শীতের সকালে সুস্থ রাখতে ব্রেকফাস্টে কী রাখবেন, রইল তালিকা

First Published 18, Jan 2020, 10:47 AM IST

শীতকাল আসা মানেই একটা খাওয়াদাওয়ার বিষয় লেগেই রয়েছে। ভাল ভাল খাওয়ার খাওয়ার আদর্শ  সময় হল শীতকাল। অনুষ্ঠান, পার্টি যেমন হামেশাই লেগেই রয়েছে তেমনি বাড়িতেই ভাল-মন্দ খাওয়ারও একটা বিষয় রয়েছে। কিন্তু যা তা খেয়ে শরীর খারাপ করলে তো হবে না। শীতকালে শরীর সুস্থ রাখতে ব্রেকফাস্টে কী খাবেন রইল তার তালিকা।

চাঃ শীতের সকালে গ্রিন টি, তুলসী টি, অথবা আদা চা-এর উপকারিতা রয়েছে। এতে যেমন ক্লান্তি দূর হয়। তেমনি শরীরও সতেজ থাকে।

চাঃ শীতের সকালে গ্রিন টি, তুলসী টি, অথবা আদা চা-এর উপকারিতা রয়েছে। এতে যেমন ক্লান্তি দূর হয়। তেমনি শরীরও সতেজ থাকে।

রুটিঃ লাল আটার রুটিতে ফাইবার এবং ভিটামিন বি রয়েছে। ফাইবার কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে শরীরে উষ্ণ ভাব এনে দেয়। ভিটামিন বি দেহকে উষ্ণ  রাখে।

রুটিঃ লাল আটার রুটিতে ফাইবার এবং ভিটামিন বি রয়েছে। ফাইবার কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে শরীরে উষ্ণ ভাব এনে দেয়। ভিটামিন বি দেহকে উষ্ণ রাখে।

ডিমঃ ডিম খেতে সবাই ভালবাসে। সেদ্ধ, হোক বা পোচ প্রোটিন সমৃদ্ধ এই খাবার প্রতিদিনের সকালে খেতেই হবে। ডিমে প্রোটিন ছাড়াও ভিটামিন ই, ক্যালসিয়াম, ওমেগা-৩ রয়েছে।

ডিমঃ ডিম খেতে সবাই ভালবাসে। সেদ্ধ, হোক বা পোচ প্রোটিন সমৃদ্ধ এই খাবার প্রতিদিনের সকালে খেতেই হবে। ডিমে প্রোটিন ছাড়াও ভিটামিন ই, ক্যালসিয়াম, ওমেগা-৩ রয়েছে।

মিক্সড ভেজিটেবিলঃ মিক্সড ভেজিটেবিলে প্রায় সব ধরনের ভিটামিন, মিনারেলস, ফাইবার থাকে , বিভিন্ন রোগের সাথে লড়াই করতে সক্ষম এই সব্জি। ত্বকের লাবণ্য ফিরে আনতেও এর জুড়ি মেলা ভার।

মিক্সড ভেজিটেবিলঃ মিক্সড ভেজিটেবিলে প্রায় সব ধরনের ভিটামিন, মিনারেলস, ফাইবার থাকে , বিভিন্ন রোগের সাথে লড়াই করতে সক্ষম এই সব্জি। ত্বকের লাবণ্য ফিরে আনতেও এর জুড়ি মেলা ভার।

স্যুপঃ স্যুপ খুবই হেলথি একটা খাবার। প্রতিদিন সকালে না হলেও যে কোনও একটা সময়ে স্যুপ খান। এতে শরীরে শক্তি বাড়ানোর পাশাপাশি ঠান্ডা দূর করে এবং ত্বকের সৌন্দর্য বজায় রাখে।

স্যুপঃ স্যুপ খুবই হেলথি একটা খাবার। প্রতিদিন সকালে না হলেও যে কোনও একটা সময়ে স্যুপ খান। এতে শরীরে শক্তি বাড়ানোর পাশাপাশি ঠান্ডা দূর করে এবং ত্বকের সৌন্দর্য বজায় রাখে।

কলাঃপ্রতিদিনের ব্রেকফাস্টে কলা অবশ্যই রাখুন। যাদের কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা রয়েছে তারা প্রতিদিন কলা খান।

কলাঃপ্রতিদিনের ব্রেকফাস্টে কলা অবশ্যই রাখুন। যাদের কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা রয়েছে তারা প্রতিদিন কলা খান।

মরশুমি ফলঃ প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় মরশুমি ফল অবশ্যই রাখুন।

মরশুমি ফলঃ প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় মরশুমি ফল অবশ্যই রাখুন।

মধুঃ শীতকালে মধুর কোনও বিকল্প নেই। গলার খুসখুস কমানোর পাশাপাশি মধু ঠান্ডা দূর করে।

মধুঃ শীতকালে মধুর কোনও বিকল্প নেই। গলার খুসখুস কমানোর পাশাপাশি মধু ঠান্ডা দূর করে।

দুধঃ প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় দুধ অবশ্যই রাখুন। দুধে যে প্রোটিন থাকে তা শরীরের জন্য উপকারী।

দুধঃ প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় দুধ অবশ্যই রাখুন। দুধে যে প্রোটিন থাকে তা শরীরের জন্য উপকারী।

কর্নফ্লেক্সঃ প্রতিদিন একঘেয়েমি খাওয়ার খেতে কারোরই ভাল লাগে না। তাই মাঝে মধ্যে কর্নফ্লেক্স খান। তার মধ্যে ফল মিশিয়েও খেতে পারেন।

কর্নফ্লেক্সঃ প্রতিদিন একঘেয়েমি খাওয়ার খেতে কারোরই ভাল লাগে না। তাই মাঝে মধ্যে কর্নফ্লেক্স খান। তার মধ্যে ফল মিশিয়েও খেতে পারেন।

ব্রাউন ব্রেডঃ সাদা ব্রেডের থেকে ব্রাউন ব্রেড অনেক বেশি উপকারী। তাই সাদা ব্রেড ভুলে ব্রাউন ব্রেড খান।

ব্রাউন ব্রেডঃ সাদা ব্রেডের থেকে ব্রাউন ব্রেড অনেক বেশি উপকারী। তাই সাদা ব্রেড ভুলে ব্রাউন ব্রেড খান।

ওটসঃ ওটস খাওয়া শরীরের পক্ষে খুবই ভাল। ওটস অনেক ভাবেই খেতে পারেন। দুধ দিয়ে, খিচুড়ি করে যেটা ভাল লাগে সেভাবেই খেতে পারেন।

ওটসঃ ওটস খাওয়া শরীরের পক্ষে খুবই ভাল। ওটস অনেক ভাবেই খেতে পারেন। দুধ দিয়ে, খিচুড়ি করে যেটা ভাল লাগে সেভাবেই খেতে পারেন।

মাখনঃ সকালের ব্রেকফাস্টে অবশ্যই মাখন খান। মাখন দিয়ে হালকা টোস্ট করে খেতে পারেন।

মাখনঃ সকালের ব্রেকফাস্টে অবশ্যই মাখন খান। মাখন দিয়ে হালকা টোস্ট করে খেতে পারেন।

সুজিঃ সুজি দিয়ে অনেকরকম খাবার বানিয়ে নিতে পারেন। ঝাল হোক মিষ্টি দুরকমভাবেই এই সুজি বানিয়ে নিতে পারেন। এতে পেটও যেমন ভরা থাকবে তেমনি শরীরও ভাল থাকবে।

সুজিঃ সুজি দিয়ে অনেকরকম খাবার বানিয়ে নিতে পারেন। ঝাল হোক মিষ্টি দুরকমভাবেই এই সুজি বানিয়ে নিতে পারেন। এতে পেটও যেমন ভরা থাকবে তেমনি শরীরও ভাল থাকবে।

loader