হাওড়ায় এবার নৃশংসভাবে খুন হয়ে গেলেন এক বিজেপি নেতা। বাড়ির কাছে রাস্তায় মিলল ক্ষতবিক্ষত দেহ। ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে সাঁকরাইলে। পুলিশকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখালেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

মৃতের নাম শেখর মালিক। বাড়ি, সাঁকরাইলের বানীপুরে শিবতলা এলাকায়। স্থানীয় বাসুদেব এলাকার বিজেপি-এর মণ্ডল সভাপতি ছিলেন তিনি। শিবরাত্রী উপলক্ষ্যে রবিবার এলাকায় নরনারায়ণ সেবার আয়োজন করা হয়েছিল। পরিবারের লোকেরা জানিয়েছেন, রাতে বাড়িতে ভোগ পৌঁছে দিয়ে ফের অনুষ্ঠানস্থলে চলে যান শেখর, কিন্তু আর ফেরেননি। সোমবার সকালে বাড়ি থেকে পঞ্চাশ মিটার দূরে রাস্তায় ওই বিজেপি নেতার ক্ষতবিক্ষত দেহ পড়ে থাকতে দেখেন স্থানীয় বাসিন্দারা। তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। খবর পেয়ে যখন পুলিশকর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছন, তখন তাঁদের ঘিরে ধরে বিক্ষোভ দেখান স্থানীয় বাসিন্দারা। শেষপর্যন্ত দ্রুত দোষীদের গ্রেফতারের আশ্বাসে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

আরও পড়ুন: যানজটে আটকে মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীরা, ট্রাফিক পুলিশের ভূমিকায় খোদ তৃণমূল বিধায়ক:

আরও পড়ুন: বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গিয়ে যুবককে 'খুন', মৃতের দুই বন্ধুকে গণধোলাই স্থানীয়দের

নিহত বিজেপি নেতা শেখর মালিকের দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছে পুলিশ। প্রাথমিক তদন্তে অনুমান, মাথা-সহ শরীরের বিভিন্ন অংশে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে খুন করা হয়েছে তাঁকে। ঘটনায় বেশ কয়েকজন সন্দেহভাজনকে তদন্তকারীদের জিজ্ঞাসাবাদ করছেন বলে জানা গিয়েছে। বিজেপি-র অভিযোগ,এলাকায় সিএএ-র সমর্থনে জনমত তৈরিতে সক্রিয় ছিলেন দলের মণ্ডল সভাপতি শেখর মালিক। তাঁকে পরিকল্পনামাফিক খুন করেছেন তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা।

 

এর আগে হাওড়ার বাগনানে খুন হয়েছিলেন এক তৃণমূল নেতা। পরিবারের লোকেদের দাবি, রাতে ফোন পেয়ে সাইকেল নিয়ে বেরিয়ে যান তিনি। পরের দিন সকালে রাস্তায় তাঁর রক্তাক্ত মৃতদেহ দেখতে পান প্রাতঃভ্রমণকারীরা। নিহত তৃণমূল নেতা একসময়ে বাগনানের বাইনান অঞ্চলের দলের অঞ্চল সভাপতি ছিলেন।