সীমান্তবর্তী এলাকায় ভারতীয়দের উপর নির্বিচারে গুলি চালালো নেপাল পুলিশ। এতে কমপক্ষে একজন ভারতীয়ের মৃত্যু হয়েছে এবং আরও চারজন আহত হয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। শুক্রবার সকালে এই ঘটনা ঘটেছে বিহারের সীমান্তবর্তী সীতামারহি জেলায়। লালবন্দি-জানকি নগর সীমান্তে নেপাল পুলিশের সঙ্গে স্থানীয় ভারতীয়দের মধ্যে সংঘর্ষের পরই এই গুলিচালনার ঘটনা ঘটেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে মৃত ব্যক্তির নাম বিকাশ কুমার রাই। বছর ২৫-এর ওই যুবক ঘটনাস্থলেই মারা যান। তিনি ছাড়াও গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর জখম হয়েছেন উমেশ রাম ও উদয় ঠাকুর। লগন রাই নামে আরও একজনকে নেপালি পুলিশ আটক করেছে। এরা প্রত্য়েকেই কৃষিক্ষেত্রে কাজ করছিলেন বলেই দাবি করেছে স্থানীয়রা। আহত ব্যক্তিদের চিকিৎসার জন্য দ্রুত সীতামারহি সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

বিহার পুলিশের পক্ষ থেকে এই গুলিচালনা এবং মৃত্যু ও আহত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও সীতামারহির পুলিশ সুপার ঘটনাস্থলে গিয়েছেন। তবে তাদের দাবি, এলাকাটি নেপালের আওতাধীন। নিহত বিকাশ কুমার রাইয়ের বাবা নাগেশ্বর রাই-ও জানিয়েছেন তাঁদের কৃষিজমি নেপালের নারায়ণপুরের অধীনে পড়ে। সেখানেই তাঁর ছেলে কাজ করছিল।

নেপাল সঙ্গে ভারতের ১,৮৫০ কিলোমিটার মুক্ত সীমান্ত রয়েছে। কাজের জন্য এবং আত্মীয় স্বজনদের সঙ্গে দেখা সাক্ষাতের জন্য দুই পারের লোকজনই সীমান্ত পেরিয়ে নিয়মিত যাতায়াত করে। তবে করোনাভাইরাস মহামারির কারণে গত ২২ মার্চ আন্তর্জাতিক সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছিল নেপাল। তারপর গত ১৭ মে বেশ কিছু ভারতীয় সীমান্ত পার করার চেষ্টা করলে নেপাল পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করতে ফাঁকা গুলি ছুড়েছিল। এবার কিন্তু, গুলি আর ফাঁকায় চলল না।

সম্প্রতি নেপালের নতুন মানচিত্র প্রকাশ করা হয়েছে। যেখানে কিছু বিতর্কিত ভূখণ্ডকে তাদের সীমানার মধ্য়ে দেখিয়েছে নেপাল সরকার। এই নিয়ে ভারতের সঙ্গে তাদের বিরোধ তৈরি হয়েছে। সেই সীমান্ত বিরোধের কোনও প্রভাব এই গুলি চালনার পিছনে আছে কিনা তা এখনও স্পষ্ট নয়।