শুক্রবার সন্ধ্যায় কেরলের কোঝিকোড়ের করিপুর বিমানবন্দরে অবতরণের সময় বড়সড় দুর্ঘটনার মুখে পড়ল এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেসের একটি বিমান। ক্রু এবং যাত্রী মিলিয়ে মোট ১৮৪ জনকে নিয়ে নিয়ে বিমানটি দুবাই থেকে আসছিল। বন্দে ভারত মিশনের আওতায় দুবাই থেকে প্রবাসী ভারতীয়দের দেশে নিয়ে আসছিল বিমানটি। জানা গিয়েছে নামার সময় রানওয়ে পার করে ছিটকে পড়ে বিমানটি। ঘটনাস্থলের ছবিতে দেখা গিয়েছে ভেঙে দুই টুকরে হয়ে গিয়েছে বিমানটি। প্রাথমিক রিপোর্ট অনুসারে মৃত্যু হয়েছে বিমানচালকের।

সেইসঙ্গে আরও দুই যাত্রী নিহত বলে জানা যাচ্ছে। অন্তত ৪০ জন যাত্রী আহত হয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। এদিন এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেসের বিমানটি অবতরণ করার সময়ই এই ভয়ানক দুর্ঘটনা ঘটে। রানওয়েতে অবতরণের পরও থামতে পারেনি বিমানটি। রামওয়ে ছাড়িয়ে প্রচন্ড গতিতে বেরিয়ে যাওয়ার পরই সংঘর্ষে টুকরো টুকরো হয়ে যায় বিমানটি।

সন্ধ্যা ৭টা বেজে ৩৮ মিনিট নাগাদ এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। সেই সময় কোজিকোড় বিমানবন্দরে মুষল ধারায় বৃষ্টি হচ্ছিল। দৃশ্যমানতা প্রায় ছিল না বললেই চলে। স্থানীয় এক বিধায়ক ইব্রাহিম জানিয়েছেন, বহু যাত্রীকেই আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে প্রবল বৃষ্টি পড়ছিল বলেই বিমানটিতে আগুন ধরেনি বলে মনে করা হচ্ছে। নইলে বিপদ আরও বাড়ত। তবে আগুন না লাগলেও এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেসের বিমানটি ৩০ ফুট গভীর একটি খালে  পড়ে যায়।

দুর্ঘটনার পরই দমকলের বেশ কয়েকটি ইঞ্জিন এবং অ্যাম্বুলেন্স ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। যুদ্ধকালীন ভিত্তিতে চলছে উদ্ধারকাজ।

জানা গিয়েছে দুবাই থেকে এয়ার ইন্ডিয়ার বিমানটি মোট ১৭৮ জন যাত্রী যাত্র শুরু করেছিল। তারমধ্যে অন্তত ১০ জন শিশুও ছিল। এছাড়া, দু'জন পাইলট সহ উড়োজাহাজটিতে মোট ৬ জন ক্রু সদস্যও ছিলেন বলে জানিয়েছে এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেস।