প্রথম উৎক্ষেপণে সফল না হলেও দ্বিতীয়বার উৎক্ষেপনে সাফল্য অর্জন করেছে ভারতের দ্বিতীয় চন্দ্রাভিযান। অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীহরিকোটা থেকে চন্দ্রযান-২-এর সফল উৎক্ষেপণ চাক্ষুস করেছিল গোটা ভারতবাসী। ইসরোর সূত্রে খবর ছিল, পরিকল্পনা মাফিকই চান্দ্রযান এগোচ্ছে চাঁদের দিকে। 

দীর্ঘ ছয় দিন ধরে ট্র্যান্স লুনার ইনসার্শন এবং দীর্ঘ ৩০ দিনের ইন্টারস্টেলার ট্র্যাভেল শেষ করে চাঁদের কক্ষপথের কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছে চন্দ্রযান-২। ভারতীয় মহাকাশ সংস্থা ইসরো সূত্রে প্রকাশিত খবর অনুসারে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে আটটা থেকে সাড়ে নটার মধ্যে চন্দ্রযান ২ চাঁদের কক্ষপথ স্পর্শ করবে বলে খবর। 

এটি ভারতের মহাকাশ গবেষণার কাছে একটা বড় চ্যালেঞ্জ। কারণ এই মিশনে চন্দ্রযান-২-এর যা গতিবেগ থাকার কথা তাক থেকে অতিরিক্ত গতিবেগে যদি চাঁদের দিকে এগিয়ে যায় তাহলে আচমকাই এটি হারিয়ে যেতে পারে মহাশূণ্যে। আবার প্রত্যাশিত গতিবেগের চেয়ে কম গতিতে যদি এগিয়ে চলে চন্দ্রযান-২ তাহলে চাঁদের মাধ্যাকর্ষণ শক্তি একে টেনে নেবে এবং চন্দ্রপৃষ্ঠে ভেঙেচুড়ে যেতে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেছে বিজ্ঞানী মহল। তাই এক্ষেত্রে চন্দ্রযান-২-এর গতিবেগ একেবারে সঠিক হতে হবে যাতে ঠিকঠাককভাবে তা চাঁদের কক্ষপথে প্রবেশ করতে পারে। এমনকি ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র সমস্যাও এর জন্য মারাত্মক বিপদ ডেকে আনতে পারে। 

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে অবশেষে ৭ সেপ্টেম্বর-এ আসবে সেই মাহেন্দ্রক্ষণ যখন চাঁদের ভূপৃষ্ঠের দক্ষিণ মেরুতে ল্যান্ড করবে থ্রি-মডিউল এই স্পেস ক্র্যাফ্ট। প্রসঙ্গত এর আগে চন্দ্রযান-২-এর ক্যামেরায় ধরা পড়েছিল পৃথিবীর ছবি। চন্দ্রযান-২-এর ল্যান্ডার বিক্রম-এর গায়ে লাগানো এল১৪ ক্যামেরা দিয়ে মহাকাশের বুকে থাকা নীল গ্রহের ছবি প্রকাশ করা হয়েছিল ইসরোর তরফে।