করোনা পরিস্থিতির কারণে বৃহস্পতিবারই পরীক্ষা বাতিল করার কথা জানিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। এবার ফল প্রকাশ নিয়েও নির্দেশ দিয়ে দিল দেশের শীর্ষ আদালত। আগামী মাসের ১৫ তারিখের মধ্যে প্রকাশিত হবে সিবিএসই-আইএসসিইর দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষার ফল। সিবিএসই পরীক্ষা নিয়ে শুনানির শেষে একথা জানিয়ে দিল সুপ্রিম কোর্ট। 

আরও পড়ুন: সব রেকর্ড ভেঙে দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১৭ হাজার ছাড়াল, দেশে মৃত্যু ১৫ হাজারের বেশি

বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্টে সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতা জানিয়েছিলন ,  আইসিএসই ও সিবিএসই দুই বোর্ডই দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষা বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে  পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে পরীক্ষা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছিল সিবিএসই। এক্ষেত্রে সিবিএসই দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষায় বসা ঐচ্ছিক করেছিল। তবে সেই সুযোগ দেওয়া হবে না বলে আইসিএসই বোর্ড সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। এই অবস্থায় ইন্টারনাল অ্যাসেসমেন্ট সিস্টেমের ভিত্তিতেই পড়ুয়াদের পরবর্তী শ্রেণিতে তুলে দেওয়া হবে। 

তবে জুলাইয়ের ১৫ তারিখের মধ্যে ফল প্রকাশ করতে হলে নম্বর দেওয়ার ক্ষেত্রে মানা হবে কিছ বিশেষ পদ্ধতি। কিভাবে নম্বর দেওয়া হবে তাও এদিন পরিষ্কার করে দিয়েছে দেশের সর্বোচ্চ আদালত।  ৩টির বেশি বিষয়ে পরীক্ষায় বেস্ট অফ থ্রি হিসাবে গড়ে নম্বর দেওয়া হবে। বাকি বিষয়ের নম্বর আসবে বেস্ট অফ থ্রি গড়ে। ৩টির বিষয়ে পরীক্ষা দিলে বেস্ট অফ টু গড়ে মিলবে নম্বর। অতএব বাকি বিষয়ের নম্বর মিলবে বেস্ট অফ টু গড়েই। একটি পরীক্ষা দিলে আগের পরীক্ষার ভিত্তিতে হবে মূল্যায়ন। সেই সঙ্গে যোগ হবে প্র্যাক্টিক্যাল পরীক্ষার গড় নম্বর।

আরও পড়ুন: এবার আকসাই চিনের জমি ফেরাতে মরিয়া ভারত, লাদাখে মোতায়েন ৪৫ হাজার জওয়ান

লকডাউন উঠে যাওয়ার পর ১ জুলাই থেকে ১৫ জুলাইয়ের মধ্যে বাকি পেপারের পরীক্ষা নেওয়ার কথা বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানায় সিবিএসই বোর্ড। এরপরই বিভ্রান্তি তৈরি হয় ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে। বিভিন্ন রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি ভিন্ন। লকডাউন উঠে গেলেও করোনার হানা আরও তীব্রতর হয়েছে দেশজুড়ে। পড়ুয়াদের নিরাপত্তার কথা ভেবে এই মুহূর্তে পরীক্ষা স্থগিত রাখা যায় কিনা প্রশ্নে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেন অভিভাবকদের একাংশ। গত ১৮ জুন এ বিষয়ে সিবিএসই-কে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে এক সপ্তাহ সময় দেয় সুপ্রিম কোর্ট।

করোনাভাইরাস এবং লকডাউন পরিস্থিতিতে দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির বোর্ড পরীক্ষা স্থগিত করে দিয়েছিল সিবিএসই ও আইসিএসই বোর্ড। সম্প্রতি ১ জুলাই থেকে ১৫ জুলাইয়ের মধ্যে বাকি পেপারের পরীক্ষা নেওয়ার কথা বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানায় সিবিএসই বোর্ড। এরপরই বিভ্রান্তি তৈরি হয় ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে। বিভিন্ন রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি ক্রমেই জটিল হচ্ছে। দেশে আনলক শুরু হলেও  করোনার হানা আরও তীব্রতর হচ্ছে। পড়ুয়াদের নিরাপত্তার কথা ভেবে এই মুহূর্তে পরীক্ষা স্থগিত রাখা যায় কিনা এই দাবি তুলে  সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেন অভিভাবকদের একাংশ। গত ১৮ জুন এই বিষয়ে সিবিএসই-কে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে এক সপ্তাহ সময় দেয় সুপ্রিম কোর্ট।

ভিডিয়ো কনফারেন্সে বিচারপতি এ এম খানউইলকর, বিচারপতি দীনেশ মহেশ্বরী এবং বিচারপতি সঞ্জীব খান্নার বেঞ্চ পরীক্ষার সিদ্ধান্ত বিষয়ে কেন্দ্রের কাছ থেকেও জানতে চায়। সলিসিটর জেনারেল জানান, একটি বিশেষজ্ঞ কমিটির দ্বারা পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে দেখা হচ্ছে। এরপর বৃহস্পতিবার বেলা ২ টো পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়েছিল চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানানোর। এরপরেই  সিবিএসই ও আইসিএসই পরীক্ষা বাতিল করার হয়েছে বলে সুপ্রিমকোর্টকে জানিয়ে দেয় কেন্দ্র। ।