গত ২৪ মার্চ রাত আটটায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, করোনাভাইরাস সংক্রমণের বিস্তারর রোধে দেশ জুড়ে লকডাউন  জারির ঘোষণা করেছিলেন। মধ্যরাত থেকেই বন্ধ হয়ে গিয়েছিল গোটা ভারত। এই আচমকা ঘোষণায় বহু  রাজ্যে পরিযায়ী শ্রমিক, পর্যটক, শিক্ষার্থী এবং অন্যান্য কারণে বাড়ি থেকে অন্য রাজ্যে পারি দেওয়া ব্যক্তিরা আটকে পড়েছিলেন। গত একমাসে তাঁদের অনেককে বাড়ি ফেরার মরিয়া চেষ্টা করতে দেখা গিয়েছে। অবশেষে বুধবার, লকডাউন-এর ৩৬তম দিনে তাঁদের বাড়িতে ফিরে যাওয়ার অনুমতি দিল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।

এদিন বিকালে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের পক্ষ থেকে একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে দেশের সবকটি রাজ্যের সরকার-কে বিভিন্ন রাজ্যের মধ্যে লোক চলাচলের বন্দোবস্ত করার নির্দেশ দিয়েছে। এই কাজের সুবিধার্থে একজন নোডাল অফিসার নিয়োগ করতে বলা হয়েছে। মন্ত্রকের এই নির্দেশে আরও বলা হয়েছে যাঁরা ঘরে ফিরতে আগ্রহ দেখাবেন বা রাজ্য ছাড়ার ইচ্ছা প্রকাশ করবেন, তাঁদের সকলকে প্রথমে থার্মাল স্ক্রিনিং ও অন্যান্য পদ্ধতিতে স্ক্রিনিং করা হবে। তারপর যদি তাদের মধ্যে কোভিড-১৯ রোগের কোনও লক্ষণ না দেখা যায় তবেই তাঁদের রাজ্য ছাড়ার অনুমতি দেওয়া হবে।

এদিন স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে গত ২৪ ঘন্টায় ভারতে কোভিড-১৯ রোগের ১,৮১৩টি নতুন মামলা বেরিয়েছে। আর গত ২৪ ঘন্টায় এই রোগ জনিত কারণে মৃত্যু হয়েছে ৭১ জনের। এটিই দেশে একদিনে কোভিড-১৯ রোগে সবচেয়ে বেশি মৃত্যুর সংখ্যা। সব মিলিয়ে দেশে ১,০০৮ জনের মৃত্যু হল করোনাভাইরাসের কারণে। আর এদিন দেশে মোট কোভিড-১৯ পজিটিভ রোগীর সংখ্যা পৌঁছেছে ৩১,৭৮৭'এ। এরমধ্যে অবশ্য সুস্থ হয়ে গিয়েছেন ৭৭৯৭ জন এবং এর বিদেশী রোগী দেশে ফিরে গিয়েছেন।