ভারতে আসছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। আর মাত্র ২দিন বাকি। তারপরই আহমেদাবাদের রাস্তায় গড়াবে তাঁর সুরক্ষা গাড়ি লিমুজিল ক্যাডিল্যাক 'দ্য বিস্ট'। তার আগে চাকরির বড় বিজ্ঞাপন এল। কাজটা সহজ সরল। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের দিকে হাত নাড়তে হবে, ব্যাস। আর তার জন্য সম্মান দক্ষিণা হিসেবে মিলবে 'অচ্ছে দিন'। কর্মখালি ৬৯ লক্ষ পদে। এরকমই দাবি করা হল এক অনলাইন বিজ্ঞাপনে।

আরও পড়ুন - থাকছেন না মোদী, তাজমহলের শহরে পা রাখতেই ট্রাম্প হাতে পাবেন রূপোর চাবি

খুলে বলা যাক, এ কেবলই বিজ্ঞাপনী চটক। সত্যি সত্যি চাকরি মিলবে না। শনিবারের কংগ্রেস দলের পক্ষ থেকে এরকমই একটি বিদ্রূপাত্মক বিজ্ঢাপন পোস্ট করা হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সফরের আগে থেকেই বলে চলেছেন তাঁকে ও নরেন্দ্র মোদীকে স্বাগত জানাতে লক্ষ লক্ষ লোক আসবেন। এই দাবিকে কটাক্ষ করেই এই বিজ্ঞাপন দিয়েছে কংগ্রেসের সোশ্যাল মিডিয়া দল।

এই বিজ্ঞাপনে একইসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী মোদীকে দেশের কর্মসংস্থানের অভাব নিয়েও খোঁচা মেরেছে কংগ্রেস। সরকারি রিপোর্টে বলা হয়েছে গত ৪২ বছরের মধ্যে কর্মসসংস্থানের হার এই মুহূর্তে সবচেয়ে নিচে। বিভিন্ন সমীক্ষার তথ্য অনুযায়ী কর্মসংস্থানের অবাব দেশের সবচেয়ে বড় সমস্যা। এমনকী দুর্নীতি বা কৃষিক্ষেত্রের থেকেও কর্মসংস্থান নিয়ে উদ্বেগ বেশি বলে দাবি করা হচ্ছে। ধারাবাহিকভাবে এই নিয়ে কংগ্রেস দলের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীকে আক্রমণ করা হয়েছে। কর্মসংস্থানের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে তিনি সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছেন বলে অভিযোগ কংগ্রেসের।  

আরও পড়ুন - মে-জামাই'ও ট্রাম্পের সফরসঙ্গী, বিপুল খরচের অনুষ্ঠানের আয়োজক নিয়ে ঘনাচ্ছে রহস্য

কিন্তু, হঠাৎ বিজ্ঞাপনে ৬৯ লক্ষ শূন্যপদের কথা বলা হল কেন? দিল কয়েক আগে ডোনাল্ড ট্রাম্প দাবি করেছিলেন আহমেদাবাদে নমস্তে ট্রাম্প অনুষ্ঠানে ৭ মিলিয়ন বা ৭০ লক্ষ মানুষ আসবেন। আহমেদাবাদের পুর কমিশনার বিজয় নেহরা অবশ্য জানিয়েছেন ১ লক্ষের কিছু বেশি লোক হতে পারে। এই ঘাটতির ৬৯ লক্ষের কথাই কংগ্রেসের বিজ্ঞাপনে তুলে ধরা হয়েছে। ট্রাম্প পরে তাঁর আগের মন্তব্য সংশোধন করে নিয়েছেন। তাঁর প্রত্যাশা অবশ্য আরও উপরে উঠেছে। এখন তিনি বলছেন, নরেন্দ্র মোদী তাঁকে বলেছিলেন ১ কোটি লোক অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন।

আরও পড়ুনন - বুশের পাতে পড়েছিল বিরিয়ানি, ওবামার পাতে কাবাব, ট্রাম্পের মেনুতে কী থাকবে

দুদিনের ভারত সফরে ডোনাল্ড ট্রাম্পের বেশ কিছু কর্মসূচি রয়েছে। তবে এই প্রথম কোনও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ভারতে এসে একবারও বিরোধী দলের সঙ্গে আলোচনায় বসছেন বা সৌজন্য সাক্ষাতও করছেন না। অর্থাৎ ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে কংগ্রেস নেতাদের মুখোমুখি হওয়ার কোনও সম্ভাবনা নেই।