শুরু হওয়ার কথা ছিল এক সপ্তাহ আগেই। অনির্বার্য কারণে তা করা যায়নি। অবশেষে সোমবার থেকে হায়দরাবাদের নিজামস মেডিকেল সায়েন্সেস ইনস্টিটিউট বা নিমস-এ শুরু হল আইসিএমআর এবং এনআইভি-র সহায়তায় সম্পূর্ণ দেশিয়ভাবে তৈরি ভারত বায়োটেকের করোনাভাইরাস ভ্যাক্সিন, কোভ্যাক্সিন-এর মানবদেহে পরীক্ষা। এদিন নিমস-এ সকাল সাড়ে ১১টায় দুইজন স্বেচ্ছাসেবক-কে এই সম্ভাব্য করোনা টিকার ডোজ দেওয়া হয়েছে।

এই ক্লিনিকাল ট্রায়ালের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত নিমস হাসপাতালের একজন ডাক্তার জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত পরীক্ষার গতিপ্রতকৃতি যথেষ্ট আশাব্যঞ্জক। এদিন ক্লিনিকাল ট্রায়ালে অংশ নেওয়া দুই স্বেচ্ছাসেবকই ছিলেন পুরুষ। বর্তমানে তাদের নিমস-এর একটি  বিশেষ ওয়ার্ডে ২৪ ঘন্টা পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। টিকা তাদের শরীরে যাওয়ার পর ভাইরাসের বিরুদ্ধে কীভাবে মোকাবিলা করছে তা ২৪ ঘন্টাই খতিয়ে দেখছেন গবেষকরা। তবে এখনও পর্যন্ত তাঁরা দুজনেই সুস্থ এবং তাঁদের দেহে টিকার ভালো সাড়া দেখা যাচ্ছে।

কোভ্যাক্সিন-এর মানব পরীক্ষার অংশ মোট ১২টি হাসপাতালে ৩৭৫ জন স্বেচ্ছাসেবককে এই পরীক্ষামূলক টিকার প্রথম ডোজ দেওয়া হবে। এর জন্য স্বেচ্ছাসেবক হতে চেয়ে নারী-পুরুষ নির্বিশেষে বহু ব্যক্তিই ই-মেল করেছেন এবং ফোন করেছেন বলে জানিয়েছেন ভারত বায়োটেক-এর কর্তারা। তাদের সবার নাম নথিভুরক্ত করা হলেও, তাদের মধ্য থেকে ঝাড়াই বাছাই করা হয়েছে। তাদের ফিটনেস এবং কোভিড-১৯ অ্যান্টিবডির মাত্রা কেন্দ্রীয় ল্যাবে পরীক্ষা করে তারপরই কোনও প্রার্থীকে চূড়ান্ত করা হচ্ছে। নিমস-এর আশা, তাদের  হাসপাতালের অন্তত ৬০ জন পরীক্ষার্থীর উপর এই পরীক্ষা করা হবে।