বিজেপি তাঁকে হিন্দু বিরোধী তকমা দিয়ে দিল্লি ভোটে ফায়দা তুলতে চাইছে। গেরুয়া বাহিনীর এই চাল রুখতে এবার টিভি চ্যানেল- এ সাক্ষাৎকার দিতে বসে হনুমান চালিসা গেয়ে ফেললেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। বুঝিয়ে দিলেন তিনি মনেপ্রাণে কতখানি হিন্দু এবং হনুমান ভক্ত। 

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীকে হনুমান চালিসা গাইতে শুনে অনুষ্ঠানে উপস্থিত দর্শকরাও করতালি দিয়ে তাঁকে উৎসাহিত করেন। কেজরীবাল অবশ্য আগেই জানিয়ে দেন, তাঁর গানের গলা একেবারেই ভাল নয়। ফলে তাঁর গলায় হনুমান চালিসা বেশ বেসুরো লাগতে পারে। 

কেজরিওয়াল জানিয়েছেন, দিল্লির কনটপ্লেসে তাঁর বাসভবনের কাছেই একটি হনুমান মন্দির আছে। তিনি সেখানে নিয়মিত যান। হনুমান চালিসা গাইলে তিনি শান্তি পান বলেও স্বীকার করে নেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী। 

আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি দিল্লিতে বিধানসভা নির্বাচন। কেজরিওয়াল সরকারের দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় প্রত্যাবর্তন রুখতে আগ্রাসী প্রচারে নেমেছেন নরেন্দ্র মোদী- অমিত শাহরা। বিজেপি-র তরফে দিল্লিতে কাউকে মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী করা হয়নি। তাই কেজরিওয়ালের লড়াইটা সরাসরি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গেই। 

দিল্লি নির্বাচনের প্রচারে কেজরিওয়ালকে সরাসরি সন্ত্রাসবাদী বলে কটাক্ষ করেছে বিজেপি। দলের সাংসদ প্রবেশ ভার্মা কেজরিওয়ালের বিরুদ্ধে এই মন্তব্য করেছেন। উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথও প্রচারে এসে অভিযোগ করেন, কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার করে নেওয়ায় কেজরিওয়াল এবং পাকিস্তান একই ধরনের ব্যথা পেয়েছেন। তিনি আরও বলেন, বিজেপি যেখানে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে কোনও আপোস না করার নীতি নিয়েছে, সেখানে কেজরিওয়াল শাহিনবাগে দেশ বিরোধী আন্দোলনে বিরিয়ানি জোগাচ্ছেন।

বিজেপি-র এই কৌশলের পাল্টা আপ-এর পক্ষ থেকে দিল্লিতে তাদের সরকারের চালু করা বিনামূল্যের বিদ্যুৎ, শিক্ষা এবং রাস্তাঘাটের অবস্থার উন্নতির মতো বিষয়গুলিকে তুলে ধরা হচ্ছে। অমিত শাহকে পাল্টা আক্রমণ করে দিল্লির আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নত করার দাবি জানিয়েছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী।