দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী তথা আম আদমি পার্টির প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়াল-ও কি শেষে করোনার কবলে পড়লেন? সোমবার থেকে তিনি সেল্ফ আইসোলেশন বা স্ব-বিচ্ছিন্নতায় বন্দি করছেন নিজেকে। মঙ্গলবারই তাঁর কোভিড-১৯ পরীক্ষা করা হবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রীর কার্যালয়ের কর্মকর্তারা। তারা আরও জানিয়েছেন, রবিবার বিকেল থেকেই দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অসুস্থ বোধ করছেন। তবে কোভিড পরীক্ষার ফল না আসা পর্যন্ত নিশ্চিতভাবে কিছু জানানো যাচ্ছে না।

রবিবার দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী শেষবার দেখা গিয়েছিল। একটি সাংবাদিক সম্মেলন করেছিলেন তিনি। সেখানে দিল্লির কোভিড মোকাবিলার পরিকল্পনা নিয়ে দুটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত-ও ঘোষণা করেছিলেন। দিল্লির সীমানা ফের খুলে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছিলেন তিনি। তবে তাঁর দ্বিতীয় সিদ্ধান্তটি বিতর্ক তৈরি করেছে। তিনি বলেন দিল্লি সরকার পরিচালিত হাসপাতালগুলিতে কেবলমাত্র 'দেল্লাইটস' অর্থাৎ দিল্লিবাসীরাই ভর্তি হতে পারবেন। ভিন রাজ্যের ব্যক্তিদদের কেন্দ্রীয় সরকারি অথবা বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হতে হবে। অনেকে কেজরিওয়ালকে মনে করিয়ে দেন, তিনি নিজেই আদতে হরিয়ানার লোক। দিল্লি এসেছিলেন কাজের সূত্রে।

রবিবার সকাল থেকেই হাল্কা জ্বর ও গলায় ব্যথার মতো কোভিড-এর লক্ষণ দেখা যাচ্ছিল। সকালে তিনি মন্ত্রীসভার একটি বৈঠক করেন। পরে সরকারি আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠকের কথা ছিল। কিন্তু, তা বাতিল করা হয়। মঙ্গলবারেও বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক ছিল, সেইগুলিও আপাতত বাতিল হয়েছে। গত দুই মাস ধরেই অবশ্য কেজরিওয়াল বেশিরভাগ বৈছক ভিডিও কনফারেন্স-এর মাধ্যমে করছেন।

ভারতের অন্যান্য বড় শহরের মতোই রাজধানীর কোভিড পরিস্থিতি-ও অত্যন্ত শোচনীয়। সোমবার সকাল পর্যন্ত দিল্লিতে মোট কোভিড রোগীর সংখ্যা ২৮,৯৩৬। এর মধ্যে সক্রিয় রয়েছে অর্ধেকেরও বেশি, ১৭,১২৫টি মামলা। আর মৃত্যু হয়েছে ৮১২ জনের। ভারতের মোট কোভিড রোগীর সংখ্যা এদিন বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২,৫৬,৬১১-তে। মৃত্য়ু হয়েছে ৭,১৩৫ জনের আর সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১,২৪,০৯৫ জন।