করোনাভাইরাসের সংক্রমণের বিরুদ্ধে গোটা দেশই ঐক্যবদ্ধ লড়াই করেছে। আর এই লড়াইয়ে নেমে বদলে গেছে দেশের মানুষের মানসিকতাও। বর্তমানে দেশের মানুষ চিকিৎসকদের পাশাপাশি সাফাই কর্মী ও পুলিশকেও যথেষ্ট সম্মান করছে। আগামী দিনেও  ঐক্যবদ্ধ লড়াই চালিয়ে যেতে হবে বলেই মন কি বাত অনুষ্ঠানে  বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এদিন মোদী আরও  বলেন করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ভারত সরকার একটি ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম তৈরি করেছে। ইতিমধ্যেই সেই প্ল্যাটফর্মে ১কোটি ২৫ লক্ষ ভারতীয় অংশ নিয়েছে। চাইলে যে কোনও ভারতীয় ওই ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে অংশ হয়ে করোনা যোদ্ধা হিসেবে নিজেকে সামিল করতে পারেন। এই ওয়েব সাইটের ঠিকানাও জানিয়েছন প্রধানমন্ত্রী। covidwarriors.gov.in এই ওয়েব সাইটে গিয়ে করোনার বিরুদ্ধে কী ভাবে লড়াই করা যেতে পারে তা নিয়ে দেশের প্রতিটি মানুষ আলোচনা করতে পারেন। কারণ এই যুদ্ধ প্রত্যেক ভারতবাসীর। 


করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে রাজ্যগুলিও ঐক্যবদ্ধভাবে লড়াই করছে। লকডাউনের মাঝেও দেশের মানুষের জীবন সচল রাখতে রেলকর্মী ও উড়ান কর্মীদের ভূমিকার ভূয়সী প্রশংসা করেন তিনি। পাশেপাশি দেশে এখনও প্রচুর পরিমানে খাদ্য মজুত রয়েছে বলেও আশ্বাস দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এই মহামারীর সময়ও দেশের কোনও মানুষ খালি পেটে ঘুমাতে যাবে না। দেশের অন্নদাতা কৃষকরাও তেমনই বার্তা দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। দেশের প্রতিটি মানুষই নিজের সামর্থ্য মত লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে বলেও জানিয়েছেন নরেন্দ্র মোদী। 

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন দেশের বেশ কয়েকটি জায়গায় পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে। কিন্তু এখনও করোনা লড়াইয়ে ঢিলে দিলে চলবে না। এদিন প্রধানমন্ত্রী আবারও নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে চলার জন্য দেশবাসীর কাছে আহ্বান জানিয়েছেন। পাশাপাশি বলেছেন মাস্কের ব্যবহারও করতে হবে। আগামী দিনে মাস্ক ভারতীয়দের জীবনধারনের একটি অঙ্গ হয়ে যাবে বলেও আশা প্রকাশ করেছেন তিনি। মাস্ক পরলেও যে কোনও মানুষ অসুস্থ তা ধরে নেওয়া ভুল। কারণ আগামী দিনে যে কোনও বুদ্ধিমান ব্যক্তি নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে মাস্ক পরবেন। পাশাপাশি যত্রতত্র থুতু ফেলতে নিষেধ করেছেন প্রধানমন্ত্রী। 

ইদের আগেই করোনাভাইরাসের সংক্রমণের হাত থেকে যাতে রক্ষা পাওয়া যায় তার জন্য প্রার্থনা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তিনি বলেন রামজন মাস শুরু হয়েগেছে। বিশ্বকে করোনামুক্ত করার প্রার্থনা করতে হবে সকলকে। পাশাপাশি রমজানের প্রার্থনার সময় প্রত্যেক মানুষ যাতে নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখে সে দিকে নজর দেওয়ার জন্য ইমামদের কাছে আবেদন জানিয়েছেন। বিহু,  বৈশাখীসহ একাধিক অনুষ্ঠান মানুষ ঘরে বলেই কাটিয়েছে। দেশের মুসলিম সম্প্রদায় যাতে সেদিকে নজর রাখে তারও আবেদন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। 

কঠিন এই সময়ও ভারত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, সার্বিয়াসহ একাধিক দেশে ওষুধ রফতানি করছে। যা নিয়ে ইতিমধ্যেই সমালোচনার ঝড় উঠতে শুরু করেছে। এদিন মনকি বাত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন দেশের এই পরিস্থিতিতে অন্য দেশে ওষুধ পাঠিয়ে ভারত রীতিমত বাহবা কুড়িয়েছে। বিশ্বের বহু দেশই বর্তমানে ভারতে ধন্যবাদ জানাচ্ছে। যা দেশের গৌরব অনেকটাই বাড়িয়ে দিয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।