গত বৃহস্পতিবার থেকে একটানা নাটক চলার পর অবশেষে মঙ্গলবার সন্ধায় কর্নাটক বিধানসৌধে অনুষ্ঠিত হল আস্থা ভোট। আর ভোট হতেই প্রত্যাশা মতোই পরাজিত হলেন জেডিএস-কংগ্রেস জোটের মুখ্যমন্ত্রী এইচ ডি কুমারস্বামী। এদিন সরকারের বিপক্ষে ভোট পড়ল ১০৫টি, আর পক্ষে ৯৯টি। ফলে পদত্যাগ করা ছাড়া উপায় রইল না কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রীর সামনে। 

আস্তাভোটে জয়লাভের পর বিধানসৌধের মধ্যেই কর্নাটকের বিজেপির পরিষদীয় দলনেতা বিএস ইয়েদুয়াপ্পা-সহ বিজেপি সাংসদদের 'ভিকট্রি সাইন' দেখাতে দেখা যায়। এরপরই কর্নাটকের বিজেপি বলেছে, এই জয় কর্নাটকের মানুষের জয়। 'দুর্নীতি ও অপবিত্র জোট'-এর অবসান হল। তারা এক স্থিতিশীল সরকার গড়বে বলেও প্রতিশ্রুতি দিয়েচে পদ্ম শিবির।

১৪ মাসের সরকারের পতনের পর বিদায়ী মুখ্যমন্ত্রী কুমারস্বামী বলেছেন, জয়-পরাজয় রাজনীতির অঙ্গ। তিনি রাজ্যপাল বাজুভাই ভালার সঙ্গে দেখা করার জন্য় সময় চেয়েছেন। সেই সময়ই তিনি পদত্যাগপত্র জমা দেবেন বলে জানা গিয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার শুরু হয়েছিল অনাস্থা প্রস্থাব নিয়ে আলোচনা। সেই আলোচনা শুক্র, সোম ও মঙ্গলবার সারাদিন ধরে চলে। এরমধ্যএ রাজ্যপাল একাধিকবার আস্থাভোট করার সময়সীমা বেঁধে দিয়েছেন। তা বারবার অবমাননা করেছেন কুমারস্বামী ও স্পিকার কে আর রমেশ কুমার। বিধানসৌধের ভিতরের কাজে তিনি আদৌ হস্তক্ষেপ করতে পারেন কিনা তাই নিয়েও তর্ক হয়। এদিনও সন্ধ্যা ৬টায় আস্থাভোট হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ভোটগ্রহণ হয় প্রায় একঘন্টা পরে। বিভিন্নভাবে চেষ্টা করেও সরকার রাখতে পারলেন না কুমারস্বামী।