নির্ধারিত ফাঁসির ১২ ঘন্টা আগে দ্বিতীয়বারের জন্য পিছিয়ে গেল নির্ভয়া কাণ্ডের ফাঁসি। বৃহস্পতিবারই দিল্লির পাতিয়ালা কোর্টে ১ ফেব্রুয়ারি ভোর ৬টার নির্ধারিত ফাঁসির পরোয়ানায় স্থগিতাদেশ চেয়েছিল ৪ আসামি। সেই আবেদনের ভিত্তি-তে হওয়া মামলায় এদিন আদালত জানিয়ে দেয়, শনিবার ভোরে ফাঁসি কার্যকর করা যাবে না। এমনকী কবে হবে ফাঁসি তার কোনও নির্দিষ্ট দিনও জানায়নি আদালত। বলা হয়েছে., পরবর্তী নির্দেশ না আশা পর্যন্ত ফাঁসির পরোয়ানায় স্থগিতাদেশ জারি করা হল।

ফাঁসি যে শনিবার হচ্ছে না তার ইঙ্গিত বৃহস্পতিবারই মিলেছিল। তার আগের দিনই মুকেশ সিং-এর পর দ্বিতীয় আসামি হিসেবে বিনয় শর্মা প্রাণভিক্ষার আবেদন করেন রাষ্ট্রপতির কাছে। তারপরি তিহার জেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল, ফাঁসি সম্ভবত আরও একবার পিছিয়ে যাবে। আইজি (কারা) রাজকুমার জানিয়েছিলেন, আইনী আনুষ্ঠানিকতা পূরণ করতেই পিছিয়ে দিতে হবে ফাঁসি। এর পাশাপাশি ফাঁসির পরোয়ানায় স্থগিতাদেশের মামলাও ছিল।

আরও পড়ুন - আর কতবার পিছোবে নির্ভয়াকাণ্ডের ফাঁসি, এখনও বাকি কী কী আইনী প্রতিকার

আরও পড়ুন - মহড়া দিলেন পবন জল্লাদ, কিন্তু আদৌ কি কাল ভোরেই হবে নির্ভয়াকাণ্ডের ফাঁসি

আরও পড়ুন - ফের খারিজ পবনের আবেদন, নির্ভয়কাণ্ডে ফাঁসির পথে বাধা আর একটিই

আরও পড়ুন - কারাগারে সে-ও যৌন নির্যাতনের শিকার, সুপ্রিম কোর্টে চাঞ্চল্যকর দাবি নির্ভয়া কাণ্ডের আসামির

এদিন সকালে দিল্লির এক আদালত তিহার জেল প্রশাসনকে নোটিশ পাঠিয়ে নির্ভয়া গণধর্ষণ ও হত্যা মামলার আসামিদের প্রাণভিক্ষার আবেদনের মামলা কোন পর্যায়ে আছে তা জানতে চায়। তিহার জেল থেকে জানানো হয়েছিল, বিনয় শর্মার প্রাণভিক্ষার আবেদন ছাড়া আর কারোর কোনও মামলা চলছে না। তাই বাকিদের ফাঁসি দিতে অসুবিধা নেই। কিন্তু, আইন বলছে যে একই মামলায় একাধিক ব্যক্তি দোষী সাব্যস্ত হলে তাদের কাউকে আলাদাভাবে ফাঁসি দেওয়া যাবে না।