সব মিলিয়ে মেরেকেটে হাতে পড়ে রয়েছে ১২ ঘন্টা সময়। আর শেষ মুহূর্তে নির্ভয়াকাণ্ডের ফাঁসি কার্যকর হওয়া না হওয়া নিয়ে একেবারে টি২০ ক্রিকেটের উত্তেজনা। ফাঁসির নির্ধারিত দিনের ঠিক একদিন আগে অন্যতম আসামি পবন গুপ্ত ফের ঘটনার সময় সে নাবালক ছিল দাবি করে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেছিল। প্রত্যাশিতভাবেই এদিন বিকেলে সেই আবেদন খারিজ হয়ে গিয়েছে। তবে নির্ভয়াকাণ্ডের ফাঁসির পথে আরও একটি বাধা রয়েছে।

বৃহস্পতিবার, চার আসামির পক্ষ থেকেই তাদের আইনজীবী দিল্লির এক আদালতে ১ ফেব্রুয়ারি ফাঁসির পরোয়ানায় স্থগিতাদেশ জারির জন্য আবেদন করেছিলেন। সেই মামলার শুনানি এখনও শেষ হয়নি। এদিন সকাল থেকে সেই মামলার শুনানি চলছে।

এদিন সকালে শুক্রবার সকালেই দিল্লির ওই আদালত তিহার জেল প্রশাসনকে নোটিশ পাঠায় নির্ভয়া গণধর্ষণ ও হত্যা মামলার আসামিদের প্রাণভিক্ষার আবেদনের মামলা কোন পর্যায়ে আছে তা জানার জন্য। তিহার জেল থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল, একমাত্র বিনয় শর্মার প্রাণভিক্ষার আবেদন-এর শুনানি এখনও ঝুলে রয়েছে। তবে বাকিদের ফাঁসি দিতে অসুবিধা নেই। আলাদা করে তিনজনকে ফাঁসি দিতে আইনি বাধাও নেই বলে জানিয়ে দেন সরকার পক্ষের আইনজীবী ইরফান আহমেদ।