৮ ফেব্রুয়ারি শনিবার  দিল্লির বিধানসভা ভোট। তার ঠিক তিন দিন আগে বুধবার রামমন্দির নির্মাণের জন্য ট্রাস্ট গঠন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। গত বছর ৯ নভেম্বর অযোধ্যা মামলার রায় দেয় সুপ্রিম কোর্ট। তখনই রামমন্দির নির্মাণের জন্য ট্রাস্ট গঠন করতে কেন্দ্রীয় সরকারকে তিন মাস সময় দিয়েছিল দেশের শীর্ষ আদালত। সেই মত বুধবার লোকসভায় ট্রাস্ট গঠনের ঘোষণা দিলেন প্রধানমন্ত্রী। 

আরও পড়ুন: বিধায়ক হিসাবে কাজের নিরিখে এগিয়ে উপমুখ্যমন্ত্রী শিশোদিয়া, ৪ নম্বরে রয়েছেন কেজরিওয়াল

গত বছর নভেম্বরে বহু দশকের অযোধ্যা মামলার নিষ্পত্তি করে দেশের শীর্ষ আদালত। সুপ্রিম কোর্ট নির্দেশ দেওয়ার মাসখানেকের মধ্যে রাম মন্দির ট্রাস্ট তৈরির ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এই ট্রাস্টের নাম দেওয়া হয়েছে 'শ্রীরাম জন্মভূমি তীর্থক্ষেত্র।' এই ট্রাস্ট অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ পর্যবেক্ষণ করবে।

বুধবার লোকসভায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র জানান, 'অযোধ্যায় রামমন্দির নির্মাণে আমরা একটা প্রকল্প তৈরি করেছি। সুপ্রমি কোর্টের নির্দেশ মেনে একটি ট্রাস্ট গঠন করা হয়েছে। এর নাম দেওয়া হয়েছে শ্রী রাম জন্মভূমি তীর্থক্ষেত্র। এই ট্রাস্ট হবে স্বশাসিত।'

 

গত বছর নভেম্বরে অযোধ্যা মামলায় ঐতিহাসিক রায় দেয় সুপ্রিম কোর্ট। তৎকালীন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের নেতৃত্বাধীন ডিভিশন বেঞ্চ অযোধ্যার বিতর্কিত ২.৭৭ একর জমি হিন্দু মামলাকারীকে দেওয়ার পক্ষে রায় দেয়। অন্যদিকে, সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডকে অযোধ্যায় অন্যত্র ৫ একর জমি দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে সর্বোচ্চ আদালত।

আরও পড়ুন: সিএএ নিয়ে মার্কিন মুলুকেও অস্বস্তিতে মোদী সরকার, এবার নিন্দা প্রস্তাব সিয়াটেল সিটি কাউন্সিলে

এদিন মোদী লোকসভায় আরও জানান,' সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ মেনে সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডকে ৫ একর জমি দিতে রাজি রয়েছে উত্তরপ্রদেশ। ভারতে হিন্দু, মুসলিম, শিখ, খ্রিস্টান, বৌদ্ধ, পার্সি ও জৈন-সবাই একই পরিবারের সদস্য। সবাইকে অযোধ্যায় রাম মন্দির গঠনে সাহায্যের জন্য আবেদন করছি।'