তখন ঘড়ির কাঁটা প্রায় সাড়ে তিনটে ছুঁই ছুঁই। দীর্ঘ তর্ক বিতর্ক কাটিয়ে বুধবার, দুপুরে অবশেষে ভারতের মাটি ছুঁল রাফাল যুদ্ধ বিমান। দুটি সুখোই বিমানের নিশ্চিন্ত নিরাপত্তায় হরিয়ানার আম্বালা বিমান ঘাঁটিতে এসে পৌঁছল ৩৬টি রাফাল জেট যুদ্ধবিমানের প্রথম পাঁচটি।

এদিন দুপুর সাড়ে তিনটে নাগাদ আম্বালা বিমান ঘাঁটিতে প্রথম রাফাল বিমানটি নামতেই প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং সেই ঐতিহাসিক মুহূর্তের ভিডিও টুইট করেন। সঙ্গে লেখেন 'আম্বালায় রাফালের টাচডাউন'।

আম্বালায় নামার পরই প্রথম পাঁচ রাফাল-কে দেওয়া হয় ওয়াটার স্যালুট বা দল সেলাম।

আম্বালায় নামার আগেই অবশ্য হরিয়ানার এই শহরের আকাশে প্রথমবার খুব কাছ থেকে উড়তে দেখা গিয়েছিল রাফল জেটগুলিকে...

 

তারও আগে ভারতের আকাশসীমায় ঢুকে পড়ার পরই ভারতীয় বায়ুসেনার এই নবতম সদস্যদের এসকর্ট করে অর্থাৎ পাহাড়া দিয়ে  নিয়ে আসে দুটি সুখোই ৩০ এমকেআই যুদ্ধবিমান।

তবে রাফালকে ভারতে স্বাগত জানানোর সঙ্গে জড়িয়ে রইল কলকাতার-ও নাম। ভারতের আকাশসীমার ঢোকার পর রাফাল যুদ্ধবিমানগুলি থেকে প্রথম বেতার যোগাযোগ করা হয় আরব সাগরে মোতায়েন থাকা ভারতীয় নৌসেনার রণতরী আইএনএস কলকাতা। রণতরীর পক্ষ থেকে 'গোল্ডেন অ্যারো' (যে স্কোয়াড্রনের অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে রাপাল)-র প্রধানকে ভারত মহাসাগরে স্বাগত জানানো হয়। ধন্যবাদ জানিয়ে রাফালের চালক বলেন, একটি ভারতীয় যুদ্ধজাহাজ সমুদ্ররক্ষার করছে এটাই সবচেয়ে বড় আশ্বাস। আইএনএস কলকাতার পক্ষ থেকে রাফাল বাহিনীর জন্য গৌরবের আকাশ ছোঁয়ার কামনা করা হয়। সেই সঙ্গে ভালোভাবে অবতরণর জন্যও শুভেচ্ছা জানানো হয়।