মঙ্গলবার (৫ জানুয়ারি) সুপ্রিম কোর্ট বড় জয় পেল মোদী সরকার। এদিন, সেন্ট্রাল ভিস্তা এলাকার পুনর্বিকাশের জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের পরিকল্পনার বৈধতাকে চ্যালেঞ্জ করে করা মামলার বিষয়ে সরকারের পক্ষেই রায় দিল আদালত। শীর্ষ আদালত নির্দিষ্ট কিছু শর্তসাপেক্ষে নতুন সংসদ ভবন-সহ সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্পকে বহাল রাখল।

আদালত বলেছে এই প্রকল্পের বিষয়ে কেন্দ্রের কাছে যথাযথ নথিপত্র রয়েছে, কাজেই এই প্রকল্পের কাজে এগোতে বাধা নেই। এদিন সুপ্রিম কোর্টের তিন বিচারকের বেঞ্চ অবশ্য এই রায়ের বিষয়ে একমত হয়নি, ২ বিচারক রায়ের পক্ষে এবং অপরজন বিপক্ষে মত দেন। সংখ্যাগরিষ্ঠ মতে প্রকল্পটি চালু রাখার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। তবে ঐতিহ্য সংরক্ষণ কমিটি থেকে ছাড়পত্র নেওয়ার মতো বেশ কয়েকটি শর্তও দেওয়া হয়েছে।

নতুন সংসদ ভবন-সহ সেন্ট্রাল ভিস্তা এলাকার পুনর্বিকাশের জন্য নরেন্দ্র মোদী সরকার যে প্রকল্পের কাজে হাত দিয়েছে, তাকে চ্যালেঞ্জ করেই মামলা করা হয়েছিল শীর্ষ আদালতে। সেই মামলার আবেদনে বলা হয়েছিল, এই প্রকল্পে ভূমি ব্যবহারের ক্ষেত্রে অবৈধভাবে পরিবর্তন করা হয়েছে। এছাড়া বিধিবদ্ধ আইন ও পুর আইন লঙ্ঘন করছে এই প্রকল্প, এমন দাবিও করা হয়েছিল। সেইসঙ্গে ঐতিহ্য সংরক্ষণ বিধিমালা লঙ্ঘনের অভিযোগও করা হয়েছিল।

শুনানি চলাকালীন, কেন্দ্রটি সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্পের পক্ষে দৃঢ়ভাবে সওয়াল করে। সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়, প্রায় শতাব্দী প্রাচীন বর্তমান সংসদ ভবনটি জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে। অগ্নিকাণ্ড-সহ মারাত্মক সব ঝুঁকিসহ বিভিন্ন নিরাপত্তাজনিত সমস্যার মুখোমুখি ভবনটি। এর জন্যই একটি আধুনিক ভবন নির্মাণের প্রয়োজন। বর্তমান ভবনটি সংস্কারের পিছনে যা খরচ হয়, তাতে নতুন ভবন নির্মাণ করলে বাজেটের অন্তত এক হাজার কোটি টাকার ব্যয় সাশ্রয় হবে।

গত ডিসেম্বরে নতুন সংসদ ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর অনুষ্ঠানের মাত্র কয়েকদিন আগে সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্প নিয়ে বাধ সেধেছিল সুপ্রিম কোর্ট। আদালত জানিয়েছিল, সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্পের বিরোধিতা করে একগুচ্ছ আবেদন জমা পড়েছে। সেগুলির বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত না আসা পর্যন্ত, কেন্দ্রীয় ভিস্তা প্রকল্প এলাকায় কোনও নির্মাণকাজ বা কোনও ভাঙাভাঙির কাজ বা গাছ কাটা চলবে না। এদিনের রায়ের পর সেইসব বাধা দূর হয়ে গেল।