আমেরিকায় দাঙ্গা বাধালো ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থকরা। মার্কিন ক্যাপিটল বিল্ডিং অর্থাৎ সংসদ ভবনে হামলা চালালো তারা। সংঘর্ষে জড়ালো মার্কিন পুলিশ বাহিনীর সঙ্গে। আর সেই সংঘর্ষের মধ্যে গুলি লেগে মৃত্যু হল এক মহিলার। লকডাউন জারি করা হল ইউএস ক্যাপিটল ভবনে। এই দাঙ্গায় উসকানি দেওয়ার অভিযোগে আগামী ২৪ ঘন্টার জন্য একযোগে ডোনাল্ড ট্রাম্পের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট নিষিদ্ধ করেছে ফেসবুক, টুইটার এবং ইনস্টাগ্রাম। সব মিলিয়ে একেবারে থমথমে পরিবেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসি-র।

গত ৩ নভেম্বর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন ছিল। সেই নির্বাচনে স্পষ্টতই হার হয়েছিল বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের। বুধবার মার্কিন ক্যাপিটল ভবনে সেই নির্বাচনে জো বাইডেনের জয়কেই আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি দেওয়ার কথা ছিল মার্কিন কংগ্রেসের। আর সেই সভা চলাকালীনই মার্কিন সংসদে হামলা চালালো শয়ে শয়ে ট্রাম্প সমর্থক।  জানা গিয়েছে এদিন এই হামলার কিছু আগেই ক্যাপিটল ভবনের অব্যবহিত দূরেই হাজার হাজার সমর্থকদের নিয়ে একটি সমাবেশ করেছিলেন ট্রাম্প। তারপরই, মার্কিন সংসদ ভবনের সামনে জড়ো হতে শুরু করেন ট্রাম্প সমর্থকরা।

ট্রাম্পের নাম লেখা পোস্টার ব্যানার এবং মার্কিন জাতীয় পতাকা নিয়ে তারা 'ভোট চুরি'র প্রতিবাদ জানাতে শুরু করে। এক সময়ের পর তাঁরা সংসদ ভবনে প্রবেশের চেষ্টা শুরু করে। কিন্তু ক্যাপিটল ভবনকে ঘিরে ছিল চতুর্স্তরীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা। ট্রাম্প সমর্থকরা জোর করে মার্কিন সংসদে প্রবেশ করার চেষ্টা করলে তাদের সঙ্গে হিংসাত্মক সংঘর্ষ বাধে পুলিশ বাহিনীর। বাধা পেয়ে ট্রাম্প সমর্থকদের পুলিশকে 'বিশ্বাসঘাতক' বলতেও শোনা গিয়েছে।

তবে বেশিক্ষণ ট্রাম্প সমর্থকদের আটকাতে পারেনি নিরাপত্তা বাহিনী। সংসদের ভিতরে ঢুকে পড়ে বেশ কয়েকজন ট্রাম্প সমর্থক। পরের চার ঘন্টা ধরে মার্কিন ক্যাপিটল ভবন ও তার চত্ত্বরে চলে তাণ্ডব। সংসদের অধিবেশন মূলতুবি হয়ে যায়, এবং ক্যাপিটল ভবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত লকডাউন জারির কথা ঘোষণা করা হয়। জানানো হয় কাউকেই ঢুকতে এবং বের হতে দেওয়া হবে না। এরই মধ্যে গুলি লেগে মৃত্যু হয়েছে এক ট্রাম্প সমর্থক মহিলার।

কে বা কারা ওই মহিলাকে গুলি করেছে তা এখনও স্পষ্ট নয়। তবে এক ট্রাম্প সমর্থক দাবি করেছেন, যখন নিরাপত্তার গণ্ডি পেরিয়ে তারা সংসদ ভবনে প্রবেশ করেন, তারপরই ওই ঘটনা ঘটে। তিনি জানিয়েছেন, চেম্বারে ঢোকার পর সেখানে নিরাপত্তার দয়িত্বে থাকা পুলিশ ও সিক্রেট সার্ভিসের কর্তারা তাঁদের ফিরে যাওয়ার কথা বলেছিলেন। কিন্তু, ওই মহিলা তারপরও তাদের দিকে এগিয়ে গিয়েছিলেন। তারপরই পুলিশ গুলি চালায়। তিনি দাবি করেছেন গুলি ওই মহিলার ঘাড়ে করা হয়েছে, তবে সরকারি সূত্রে বলা হয়েছে গুলি লেগেছে বুকে। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর তাঁর মৃত্যু হয়। পরে মার্কিন সংসদ ভবনের কাছ থেকেই উদ্ধার করা হয় একটি বিস্ফোরক যন্ত্রও।

এদিকে, সমর্থকদের হিংসায় উসকানি দেওয়ার অভিযোগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট ২৪ ঘন্টার জন্য ব্লক করে দিয়েছে ফেসবুক টুইটার ও ইনস্টাগ্রাম। টুইটার সংস্থার পক্ষ থেকে এমনকী পাকাপাকিভাবে ট্রাম্পকে নিষিদ্ধ করার হুমকিও দেওয়া হয়েছে। তাঁদের নীতি লঙ্ঘনকারী তিনটি টুইট মুছে ফেলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ট্রাম্পকে।

তবে এত কিছু করেও বিশেষ সুবিধা করতে পারেননি ডোনাল্ড ট্রাম্প। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত, মার্কিন ক্যাপিটল 'সুরক্ষিত' ঘোষণা করার পরই ফের একবার বসেছে অধিবেশন। প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত জো বাইডেনের জয় এদিনই সিলমোহর লাগানো হবে।