Asianet News BanglaAsianet News Bangla

সংগ্রামপুর বিষমদকাণ্ডে দোষী সাব্যস্ত খোঁড়া বাদশা, ১০ বছর পর বিচার পেল ১৭৩টি পরিবার

২০১১ সালে হইচই ফেলে দিয়েছিল সংগ্রামপুরের বিষাক্ত মদ কাণ্ড, যেখানে মৃত্যু হয়েছিল ১৭৩ জনের। সেই মামলার রায়ে এদিন মূল অভিযুক্ত খোঁড়া বাদশাকে দোষী সাব্যস্ত করল আলিপুর আদালত। 
 

2011 Sangrampur toxic alcohol case verdict, Alipore Court convicts Khoda Badsah ALB
Author
Kolkata, First Published Jul 31, 2021, 5:28 PM IST
  • Facebook
  • Twitter
  • Whatsapp

২০১১ সালে হইচই ফেলে দিয়েছিল এই ঘটনা। দক্ষিণ ২৪ পরগণার মগরাহাট থানা এলাকার সংগ্রামপুরে বিষমদ পান করে মৃত্যু হয়েছিল ১৭৩ জনের। পরবর্তীকালে পুলিশ গ্রেফতার করেছিল, ওই বেআইনি মদ তৈরির চক্রের কিংপিন বা মূল পান্ডা নুর ইসলাম ফকির ওরফে খোঁড়া বাদশাকে। ৯ বছর ধরে মামলা চলার পর, শনিবার, আলিপুর জেলা ও দায়রা আদালত এই মামলার রায়ে খোঁড়া বাদশাকে দোষী সাব্যস্ত করল। তার কী সাজা হবে, তা সোমবার জানানো হবে বলে জানানো হয়েছে আদালতের তরফে। 

খোঁড়া বাদশাকে এদিন আদালত, হত্যা, গুরুতর ক্ষতিসাধন-সহ ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪টি ধারায় দোষী সাব্যস্ত করেছে। তাছাড়া, তার বিরুদ্ধে  'বেঙ্গল এক্সাইস অ্যাক্ট'-এর একাধিক ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছিল, সেগুলিও প্রমাণিত হয়েছে। তবে, তার সঙ্গে সিআইডি-র চার্জশিটে নাম থাকা আরও সাতজনের বিরুদ্ধে যথেষ্ট প্রমাণ না থাকায়, তাদের বেকসুর খালাস দিয়েছে আদালত। েদের েকজন তার স্ত্রী শাকিলা বিবি। বার এই মামলার সাজা ঘোষণা করা হবে। 

সংগ্রামপুরে বেশ কয়েকটি ভাটিখানা চালাত নুর ইসলাম। ব্যবসা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সেই অবৈধ মদে নেশার মাত্রা বাড়াতে গিয়েছিল সে েবং তার দলবল। এর জন্য মদের মধ্যে মিথাইল অ্যালকোহল-সহ আরও বেশ কিছু বিষাক্ত রাসায়নিক মেশাত। সেই বিষমদ খেয়ে মগরাহাট, উস্তি, মন্দিরবাজার এবং ডায়মন্ড হারবারের আরও বেশ কয়েকটি এলাকার ১৭৩ জনের মৃত্যু হয়েছিল। 

আরও পড়ুন - 'চাষিদের ভুল বুঝিয়ে টাকা লুঠ', কৃষক বন্ধু প্রকল্পে ১২০ কোটি টাকা ঢুকতেই অভিযোগ BJP-র

আরও পড়ুন - 'করোনার নামে তাঁদের কোনও কর্মসূচিই করতে দেওয়া হয় না', 'ম্যারাথন হচ্ছেই', চ্যালেঞ্জ দিলীপের

আরও পড়ুন - 'অলভিদা...', রাজনীতি ছাড়লেন বাবুল সুপ্রিয়

এরপরই খোঁড়া বাদশার বাড়িতে আছড়ে পড়েছিল জনরোষ। ভাটিখানা ভেঙে দেন ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা। এই ঘটনা রাজনীতির আঙিনাতেও ঝড় তুলেছিল। অভিযোগ উঠেছিল, শাসক দলের বেশ কয়েকজন নেতাকে মাসে মাসে উৎকোচ দিয়েই অবৈধ ব্যবসা চালাত নুর ইসলাম ফকির। ঘটনার তদন্তভার দেওয়া হয়েছিল সিআইডিকে। প্রথমে গা ঢাকা দিয়ে থাকলেও, পরবর্তীকালে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেছিল খোঁড়া বাদশা। তার বিরুদ্ধে অনেক প্রমাণও মিলেছিল।  

খোড়া বাদশা দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পরও প্রশ্ন উঠছে, শাসক দলের যেসব নেতারা ই জঘন্য কাদের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন, তাদের কী হবে?

2011 Sangrampur toxic alcohol case verdict, Alipore Court convicts Khoda Badsah ALB

2011 Sangrampur toxic alcohol case verdict, Alipore Court convicts Khoda Badsah ALB

 

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios