থেমে থাকল না সংখ্যাটা। রাজ্য়ে একই দিনে তিনজনের শরীরে মিলল করোনা পজিটিভের নমুনা। যার জেরে রবিবার এক ধাক্কায় ১৮ থেকে ২১-এ পৌঁছে গেল রাজ্য়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। বিকেলেই এক চিকিৎসকের পর আরও দু-জনের শরীরে মিলল এই মারণ ভাইরাস। শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী, এদিন তৃতীয় করোনা আক্রান্ত শেওড়াফুলির বাসিন্দা। ৫৬ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তাঁর শারীরিক অবস্থা ভালো নয় বলে জানা গিয়েছে।

এদিনই প্রথম রাজ্য়ে করোনায়  আক্রান্ত  হন এক চিকিৎসক। নাইসেড সূত্রে খবর, রবিবার ওই চিকিৎসকের নমুনা করোনা পজিটিভ এসেছে। জানা গিয়েছে, ওই চিকিৎসক কমান্ড হাসপাতলের অ্য়ানাস্টিওলজিস্টের কাজ করতেন। বিকেলে এদিন ওই চিকিৎসকের আক্রান্ত হওয়ার খবর আসতেই রাজ্য়ের করোনা সংক্রমিত হওয়ার সংখ্যাটা পৌঁছয় মোট ১৯ জনে। পরে আরো দুজন করোনায় আক্রান্ত হলে সংখ্য়া ২১ -এ দাঁড়ায়।

তবে আশঙ্কার মধ্য়েই আশার আলো। রাজ্য়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্য়া বৃদ্ধি পাওয়ার মধ্য়েই সেরে উঠল তিন। নাইসেড সূত্রে খবর,এদিনই বেলেঘাটা আইডিতে রাজ্যের ওই ৩ জনের রিপোর্টে করোনা নেগেটিভ পাওয়া গেছে। আপাতত  দ্বিতীয়বার  নমুনা পরীক্ষার জন্য় অপেক্ষা  করছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। ২৪ ঘণ্টার মধ্য়ে ওই রিপোর্ট হাতে এলেই সুস্থ্য় ঘোষণা করা হবে তাদের। তবে হাসপাতালের নিয়ম অনুযায়ী আরও ১৪ দিন কোয়রান্টিনে থাকতে হবে এই তিনজনকে। তবে তা বাড়িতে না হাসপাতালে তা জানা যায়নি।

হাসপাতাল সূত্রে খবর, এই তিন জনের মধ্য়ে রয়েছে রাজ্য়ের লন্ডন ফেরত আমলা পুত্রের নাম। দ্বিতীয়জন হাবড়ার স্কটল্যান্ড ফেরত তরুণী। তৃতীয়জন বালিগঞ্জের  লন্ডন ফেরত যুবকের বাবা এই ৩জনের শরীরে করোনা নেগেটিভ পাওয়া গিয়েছে। যদিও নতুন এই খবরে আপাতত স্বস্তি পেয়েছে রাজ্যবাসী। তবে বাবার রিপোর্ট  নেগেটিভ এলেও ছেলে ও মায়ের রিপোর্ট এদিন পজেটিভ এসেছে। যা হয়রান করেছে বালিগঞ্জের অভিজাত ব্য়বসায়ী পরিবারকে।