একদিনের সফরে কলকাতায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। দিনভর ঠাসা কর্মসূচি। তারই মধ্যে সময় বার করে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী গেলেন কালীঘাটের মন্দিরে। মন্দিরের মূল গেট দিয়েই তিনি প্রবেশ করেন। সোজা চলে যান গর্ভগৃহে। সেখানে ভক্তিভরে দেবীর আরাধনা করেন বিজেপির এই শীর্ষ নেতা। নিজের হাতে পুজো করেন। তবে তার আগে শহিদ মিনারের জনসভায় উপস্থিত ছিলেন তিনি। সেখানেই তাঁকে একটি কালীর ছবি উপহার দেন বঙ্গ বিজেপির নেতারা। রাজ্য নেতাদের হতে তাঁর হাতে পুরস্কার তুলে দেন রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ। 

আরও পড়ুনঃ লক্ষ্য বাংলার বিধানসভা, শহিদ মিনারের সভা থেকে দলীয় কর্মীদের উদ্দেশ্যে বললেন অমিত শাহ

দুপুর তিনটে নাগাদ শেষ হয় শহিদ মিনারের জনসভা। সেখান থেকেই সোজা অমিত শাহ চলে যান কালীঘাটের মন্দিরে। জেড প্লাস ক্যাটাগরির সুরক্ষা পান অমিত শাহ। তাঁর নিরাপত্তার মূল দায়িত্বে সিআরপিএফ। তবে শহিদ মিনার থেকে কালীঘাটের মন্দিরের যাত্রা পথের দায়িত্ব ছিল কলকাতা পুলিশের হাতে। 

আরও পড়ুনঃ দিদিকে বলো-তে ফোন করার ডাক, মঞ্চ থেকে এ কী বললেন অমিত শাহ

দেবীকে ভোগ দেওয়ার জন্য দুপুর দুটো থেকে পাঁচটা মন্দিরে সাধারণের প্রবেশাধিকার থাকে না। শুধুমাত্র কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর জন্যই এদিন দেবী দর্শনের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। শুনশান মন্দিরে প্রবেশ করে সামনাসামনি দেবী দর্শন করেন অমিত শাহ। পুজোও দেন নিষ্ঠা ভরে। 

আরও পড়ুনঃ কলকাতার বুকেও 'গোলি মারো', বিতর্কিত স্লোগানে কাঁপল ধর্মতলা

রবিবার সকালেই দিল্লি থেকে বিশেষ বিমানে কলকাতায় এসে পৌঁছান কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। প্রথমেই উদ্বোধন করেন রাজারহাটে এনএসজির একটি ভবন। সেখানে জাতীয় নিরাপত্তা রক্ষীদের জন্য কেন্দ্রীয় সরকার একগুচ্ছ প্রকল্প আনছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। তারপরই চলে আসেন শহিদ মিনারে বিজেপির জনসভায়। সেখানে মূল বক্তাও ছিলেন  তিনি। শহিদ মিনারের জনসভা থেকে রাজ্যের তৃণমূল সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন অমিত শাহ। ২০২১ সালে বিজেপি বাংলার বিধানসভা দখল করবে বলেও আশা প্রকাশ করেছেন তিনি। একই সঙ্গে তিনি অভিযোগ করেন সিএএ নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস রাজ্য়বাসীকে ভুল বোঝাচ্ছে।   তারপরই অমিত শাহ চলে যান কালীঘাটে। সেখানে পুজো দিয়ে দলের নিজস্ব কর্মসূচিতে অংশ নেন তিনি। রবিবার রাতেই কলকাতা ছেড়ে দিল্লির উদ্দেশ্য রওনা দেবেন অমিত শাহ।