কোভিডে কলকাতার হাসপাতালে আরও এক চিকিৎসকের মৃত্যু। মালদার ওই চিকিৎসকের নাম  সুব্রত সোম। ২০ দিনের মাথায় কলকাতার হাসপাতালে চিকিৎসার পর মারা গেলেন। সূত্রের খবর, শুধু সুব্রত সোমই নন, তার পুরো পরিবারই কোভিড পজিটিভ হয়েছিল। 


কোভিড আক্রান্ত হওয়ার পর চিকিৎসক সুব্রত সোমকে মালদহ জেলা হাসপাতালে প্রথমে ভর্তি করা হয়। কোভিড আক্রান্ত হয়ে একই সঙ্গে ভর্তি হন তার পরিবার। চিকিৎসক সুব্রত সোম এর মেয়ে এবং স্ত্রী পরে সুস্থ হয়ে বাড়িতে ফিরে যান। কিন্তু সুব্রত সোমের শারীরিক অবস্থা ক্রমশ অবনতি দিকে যাওয়ায় তাঁকে পাঠানো হয় কলকাতার মেডিক্যাল কলেজে। মেডিক্যালে ৭ দিন থাকার পর তাঁকে ফের স্থানান্তিরিত করা হয় ইএম বাইপাসের ধারে মুকুন্দপুর বারখোলার একটি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে। সেখানে  একমোর সিস্টেম সাপোর্টে রাখা হয়েছিল তাঁকে। এমনটাই জানিয়েছেন মালদহের চিকিৎসক সঞ্জীব পাল।

 

অপরদিকে, 'ডাঃ সুব্রত সোম অমর রহে, এই মৃত্যু শোক কাঁধ থেকে নামানো যাবে না কোনদিন' বলে স্মৃতির শহরে ডুব দিয়েছেন প্রয়াত চিকিৎসক সুব্রত সোমের বন্ধু-শুভাকাঙ্ক্ষীরা। করা হয়েছে হৃদয় ছুঁয়ে যাওয়া একটি সোশ্যাল পোস্ট। শুধু চিকিৎসক হিসেবেই নন, সমাজে শিক্ষা, স্বাস্থ্য এবং সংস্কৃতি নিয়েও যে তিনি ছিলেন অনবদ্য তাও উল্লেখ করা হয়েছে। তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যে কথাটি সেখানে বলা হয়েছে তা হল, চিকিৎসক কাজল কৃষ্ণ বণিক জানিয়েছেন, 'ব্যক্তিগত ভাবে, মালদা জেলার অন্ধত্ব নিবারণ কর্মসূচির দায়িত্বে থাকার কারণে দেখেছি কি অপরিসীম মমত্বে সেই কাজ করা। দেখেছি একজন মৃত মানুষের থেকে তাঁর দান করা চোখ সংগ্রহ করার কাজে যত্নশীল সুব্রতদাকে। তাই, আজ তাঁর চলে যাওয়ার পর নিজে স্বজন হারানোর ব্যথা অনুভব করছি। বড় বেদনার সংবাদ। বড় কঠিন মেনে নেওয়া। তাই সুব্রতদাকে হারিয়েও বলতে ইচ্ছা করে, তুমি আছো। তুমি থাকবে।' 

 

 

 

 

ডাঃ সুব্রত সোম অমর রহে: --- এই মৃত্যু শোক কাঁধ থেকে নামানো যাবে না কোনদিন। সুব্রতদা, আমার থেকে বয়সে একটু বড় ছিল।...

Posted by Kajalkrishna Banik on Friday, December 25, 2020