রবি ঠাকুরের  'বাধ ভেঙে দাও' লাইনেই বক্তব্য়েই একুশের জুলাইয়ের ভাষণ শুরু করলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়। এদিন কোভিড পরিস্থিতি নিয়ে ক্ষোভ উগরে দিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো। কোভিড ইস্যুতেই এদিন মোদী সরকারকে আক্রমণ করেছেন মমতা।

আরও পড়ুন, ২১ জুলাই আটাশ বছর আগে ঠিক কী হয়েছিল, জানুন আজ কেন শহিদ দিবস

এদিন তিনি বলেছেন, কোভিড পরিস্থিতিতে  টিকা নেই, অক্সিজেন নেই। মৃতদেহ ভাসিয়ে দেওয়া হয়েছে গঙ্গায়।' উল্লেখ্য, ভোটচের পর পরই আচমকাই একটা খবর প্রকাশ্যে আসে যে, যোগী রাজ্য উত্তরপ্রদেশের গঙ্গার পাড়ে পুরোপুরি না পুড়িয়ে কোভিড দেহ নদীর জলে ফেলে দেওয়া হচ্ছে। এদিকে এই খবর ছড়িয়ে পড়েতই বাংলার মালদহ এলাকার গঙ্গা পাশবর্তী এলাকায় আতঙ্কের সৃষ্টির হয়। এমনকি কিছু দিন পর সেই আশঙ্কা সত্যিও হয়। এদিকে জল থেকে সংক্রমণ ছড়ানোর সম্ভাবনায় রাজ্য সরকার নদীর জল সেই মুহূর্ত ব্যবহার করতে বারণ করে। একদিকতে তখন দ্বিতীয় ওয়েভে দিশেহারা বাংলা। তার উপর ভোট, সব মিলিয়ে তথৈবচ হয় রাজ্যের পরিস্থিতি। এদিব সেই ইঙ্গিতই তুলে এন মমতা আরও বলেছেন,' কোভিড নিয়ে দেশকে শেষ করে দিয়েছে। দ্বিতীয় তরঙ্গ ঢুকে ইতিমধ্যেই ৪ লক্ষ্য প্রাণ অকালে ঝরে গিয়েছে বলে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে এদিন তীব্র আক্রমণ করেন মমতা। 


আরও পড়ুন, ২১-র মঞ্চে চব্বিশে চোখ, BJP-কে দেশ ছাড়া করার হুশিয়ারী মমতার 

 যদিও ভোটের পর বিপুল জয়ে রাজ্যে তৃতীয়বারের মুখ্যমন্ত্রী হয়ে রাজ্যকে কোভিড মুক্ত করার লক্ষ্যেই ব্রত হন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়। এদিন একুশে জুলাইয়ে পৌছে আগের থেকে এখন অনেকটাই কমে এসেছে সংক্রমণ তথা মৃত্য়ুরও হারাও।  স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিন অনুযায়ী ১৮ জানুয়ারী সুস্থতার হার পেরিয়ে ৯৭ শতাংশ হয়েছিল। তারপর ক্রমশ বাড়তে বাড়েতে সুস্থতার হার  ৯৭.৮৮ শতাংশে পৌছে গিয়েও ফের পতন হয়। কিন্তু সেই জানুয়ারীর অভিশপ্ত প্রায় ৭ মাস পেরোনোর পর, বুধবারের  স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিন অনুযায়ী, রাজ্যে  সুস্থতার হার  একদিনে  ৯৮.০০  শতাংশ।  রাজ্যে এই মুহূর্তে একদিনে আক্রান্ত হয়েছেন,   ৮৬৯ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ১০ জনের।