কোভিড পরিস্থিতির জন্য বাতিল রাজ্যে মাধ্যমিক-উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা। সোমবার নবান্নে থেকে ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়। বিশেষজ্ঞ কমিটির এবং জনগণের মতামতের উপর ভিত্তি করেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। পরীক্ষা না দিয়ে কীভাবে মার্কশিট তৈরি করা হবে, আগামী ৭ দিনের মধ্যে সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।  

 

আরও পড়ুন, যশ বিধ্বস্ত এলাকা নদীপথে ঘুরে দেখলেন কেন্দ্রীয় দল, দেখুন ছবিতে-ছবিতে 

 

 


কোভিড পরিস্থিতিতে  রাজ্যে মাধ্যমিক-উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা নেওয়া উচিত হবে কিনা, এনিয়ে মত পার্থক্য চলছিল অনেক আগে থেকেই। কীভাবে পরীক্ষা নেওয়া যেতে পারে, এই সকল দিক খতিয়ে দেখতে গঠা করা হয়েছিল ৩ সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি। একাধিকবার বৈঠকের পর কমিটির তিন সদস্য একটি রিপোর্ট তৈরি করেন। সেখানে পরীক্ষা নেওয়া ঝুঁকিপূর্ণ বলেই জানিয়েছেন তাঁরা। চলতি বছরের পরীক্ষা বাতিলের সুপারিশ করেন। এরপর মাধ্যমিক-উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা নেওয়া হবে কিনা এনিয়ে রাজ্যবাসীরও মতামত জানতে চায় পশ্চিমবঙ্গ সরকার। শিক্ষা দফতর থেকে একটি নির্দেশিকা জারি করা হয়। সেখানে অভিভাবক, পড়ুয়া এবং সাধারণ মানুষের মতামত জানচে ৩ টি ইমেল আইডি দেওয়া হয়। সোমবার দুপুর ২ টোর মধ্যে সেখানে মতামত জানাতে বলা হয়েছিল। ইতিমধ্যেই শেষ হয়েছে সেই সময়। তারপরেই  নবান্নে থেকে মাধ্যমিক-উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা বাতিল ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়। 

আরও পড়ুন, পেট্রোল-ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধিতে মাথায় হাত মধ্যবিত্তের, সেঞ্চুরি হাঁকাবে কি কলকাতাও 

 


সোমবার মমতা বন্দ্য়োপধ্যায় জানিয়েছেন, ৩৪ হাজার জনমত এসেছে ইমেলে। সেখানে উচ্চ-মাধ্যমিক না হওয়ার পক্ষে রয়েছেন ৮৩ শতাংশ। মাধ্যমিক পরীক্ষাও চাইছেন না অধিকাংশ। তবে পড়ুয়াদের যাতে কোনও রকম অসুবিধা না হয়, সেটা দেখাও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। একই সঙ্গে তিনি এদিন বলেন, মাধ্যমিক-উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার মূল্যায়ন যেনও একই সঙ্গে হয়। এরপর তিনি টুইট করে সকলকে 'মূল্যবান মতামত এবং পরামর্শ' পাঠানোর জন্য ধন্যবাদও জানিয়েছেন মমতা। এভাবেই  রাজ্য সরকার মাধ্যমিক-উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা বাতিল করার সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে বলেও জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়।