'অফিস টাইমে দুই ডিভিশনে ট্রেন পরিষেবা ৯৫ শতাংশ করা হবে। ধাপে ধাপে ১০০ শতাংশ করার চেষ্টা করা হবে', বৃহস্পতিবার ভবনী ভবনে ফের বৈঠকে বসেছিল রাজ্য-রেলের আধিকারিকরা। তারপর বৈঠক শেষেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। উল্লেখ্য, স্বরাষ্ট্রসচিব অথবা মুখ্যসচিবের পৌরহিত্যে এই বৈঠক হয়েছে।

 

 

আরও পড়ুন, চেনা ছন্দে হাওড়া স্টেশন, স্বাস্থ্য বিধি মানতে তৎপর প্রশাসন

 প্রসঙ্গত লোকাল ট্রেন চালুর প্রথম দিন থেকেই ট্রেনের সংখ্যা আরও বাড়ানোর দাবি উঠতে শুরু হয়ে যায়। বিশেষত শিয়ালদা ডিভিশনের সকালের দিকে এবং সন্ধ্যার দিকে লোকাল ট্রেন আরো বাড়ানো হোক এই দাবি করেছেন যাত্রীরা। অন্যদিকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়  বুধবার সাংবাদিক সম্মেলন করে নবান্ন থেকে জানিয়েছেন, টকরোনা সংক্রমণে কথা মাথায় রেখে ট্রেনের সংখ্যা আরও বাড়ানো হোকট। সেই বিষয়ে আলোচনার জন্যই বৃহস্পতিবার বিকেল তিনটের সময় বৈঠকে বসেন চলেছে রাজ্য এবং রেল কর্তারা। উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের মুখ্য সচিব আলাপন বন্ধ্যোপাধ্যায়, কলকাতা পুলিশ এর জয়েন্ট সিপি হেডকোয়াটার, কলকাতা পুলিশ সিপি অনুজ শর্মা, শিয়ালদা ও হাওড়া ডিভিশনের ডিআরএম, ও আরপিএফ-র উচ্চকর্তারা।

 

 

আরও পড়ুন, লোকাল ট্রেন চালু হলেও আপাতত বন্ধ টিকিট বুকিং UTS অ্যাপ, কাউন্টারই এখন একমাত্র ভরসা

অপরদিকে, পূর্ব রেলের আধিকারিকরা আগেই জানিয়েছিলেন, অফিস টাইমে ৮৪ শতাংশ লোকাল ট্রেন চালাচ্ছেন তারা। যাত্রী সংখ্যা বৃদ্ধি হলে আরও লোকাল ট্রেন চালানোর পরিকল্পনা রয়েছে তাদের।  সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী, শেষ পর্যন্ত রেল-রাজ্য়ের বৈঠকে  ট্রেন পরিষেবা ৯৫ শতাংশ করা সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।