খাস কলকাতা থেকে গ্রেফতার হল আইএস মদতপুষ্ট চার জঙ্গি। ধৃতদের মধ্যে তিনজন বাংলাদেশের এবং একজন এরাজ্যের বীরভূমের বাসিন্দা। ধৃতরা বাংলাদেশের নব্য জামাত গোষ্ঠীর সদস্য হলেও তারা আন্তর্জাতিক জঙ্গি গোষ্ঠী আইএসের হয়েই কাজ করত। 

কলকাতা পুলিশের স্পেশাল টাস্ক ফোর্স বা এসটিএফ গোপন সূত্রে খবর পেয়ে সোমবার প্রথমে শিয়ালদহ স্টেশনের কাছে পার্কিং লট থেকে দুই জঙ্গিকে গ্রেফতার করে। ধৃতদের কাছ থেকে উদ্ধার হওয়া একটি মোবাইল ফোনে জেহাদি ভিডিও, ছবি-সহ নানা তথ্য পাওয়া গিয়েছে বলে জানিয়েছ এসটিএফ। 

ধৃতদের জেরা করে মঙ্গলবার ভোরে হাওড়া স্টেশনের কাছ থেকে আরও দুই জঙ্গিকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের কাছ থেকেও জেহাদি বই উদ্ধার করা হয়েছে। 

এসটিএফের তরফে জানানো হয়েছে, বাংলাদেশে গ্রেফতারি এড়াতেই এ রাজ্যে এসে আশ্রয় নিয়েছিল তিন বাংলাদেশি জঙ্গি। তাদের নাম জিয়াউর রহমান ওরফে জাহির আব্বাস, মামুনুর রশিদ এবং মহম্মদ শাহিন আলম। এদের মধ্যে প্রথম দু' জনকে শিয়ালদহ থেকে গ্রেফতার করা হয়। তৃতীয় জনকে হাওড়া স্টেশনের কাছ থেকে ধরা হয়। শাহিন আলমের সঙ্গে বীরভূমের নয়াগ্রামের বাসিন্দা রবিউল ইসলামকে গ্রেফতার করা হয়। 

জানা গিয়েছে, এরাজ্য থেকে মূলত অর্থ সংগ্রহ এবং সংগঠনের নতুন সদস্য নিয়োগের কাজ চালাত ধৃত জঙ্গিরা। সোশাল মিডিয়াতেও নিয়মিত জেহাদি মতাদর্শ ছড়িয়ে দিত তারা। প্রমাণ হিসেবে জঙ্গিদের কাছ থেকে জেহাদি বই ছাড়াও বেশ কিছু ভিডিও এবং অডিও ফাইল উদ্ধার করেছে এসটিএফ।  ভারত এবং বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে নির্বাচিত সরকারকে ফেলে দেওয়াই তাদের মূল লক্ষ্য ছিল। ধৃতদের এ দিনই ব্যাঙ্কশাল আদালতে তোলা হবে। 

bangla_promo_card