লকডাউনে বিপাকে পড়েছে দেশ। সেই সময় মহিলাদের পাশে দাঁড়ালেন প্রধানমন্ত্রী। দেশের জনধন অ্যাকাউন্ট হোল্ডার এরকম ২০ কোটি মহিলার কাছে পাঠানো হল ৫০০টা। অ্য়াকাউন্টে যা দেখে মোদীকে ধন্যবাদ জানিয়ছেন অনেকেই। 

করোনা নিয়ে তথ্য় গোপন করছে রাজ্য়, হাইকোর্টে দায়ের একাধিক মামলা..

সরকারি ঘোষণা তাই প্রথমে বিশ্বাস করেননি অনেকেই। অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ আগেই জানিয়েছিলেন মহিলাদের জন্য় ৫০০ টাকা জনধন অ্যাকাউন্টে পৌঁছে দেবে মোদী সরকার। অবশেষে লকডাউনে ঢুকতে শুরু করেছে সেই টাকা। দেশের সঙ্গে সঙ্গে কলাকাতয় বহু মহিলার অ্যাকাউন্টে পৌঁছে গিয়েছে নগদ। প্রথমে বিশ্বাস না করলেও এখন কলকাতার সেই মহিলাদের মুখে এক কথা, মোদী হে তো মুমকিন হে। 

লকডাউনে মদের হোম ডেলিভারি ! খবরের সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন পুলিশ কমিশনারের...
 
দমদমের শ্যামলী ঘোষ (নাম পরিবর্তিত)-এর অ্যাকাউন্টে শুক্রবার ঢুকেছে সেই টাকা। প্রকাশ্য়েই দুর্দিনে এই টাকা দেওয়ার জন্য় মোদীকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি। পাড়ায় পাড়ায় ছাত্র পড়িয়েই দিন চলে মহিলার। লকডাউনে এই টাকাও এখন তার কাছে বিরাট ব্য়াপার। ব্যাঙ্কের তরফে জানানো হয়েছে, অ্যাকাউন্ট নম্বরের ভিত্তিতেই একে একে টাকা ঢুকছে মহিলাদের। সবার একসঙ্গে না পৌঁছলেও ২০ কোটি মহিলার কাছে এই টাকা পৌঁছনোর পণ নিয়েছে মোদী সরকার।  

রাজ্যের খাতায় ৭১, কেন্দ্রের হিসেবে পশ্চিমবঙ্গে করোনায় আক্রান্ত ৯৯.
 
এই টাকা আসার প্রথম কিস্তি শুরু হয়েছে এ মাসেই। আগামী আরও ২ মাস এই টাকা দেবে কেন্দ্র। যে অ্যাকাউন্ট হোল্ডারদের ব্যাঙ্কের বইয়ের নম্বর ০ বা ১, তারা ৩ এপ্রিল অ্যাকাউন্টে টাকা পেয়েছেন ইতিমধ্য়েই। বাকিদের কাছে একইভাবে নম্বরের ভিত্তিতে টাকা ঢুকেছে। যদিও এই টাকা নিয়ে মোদীকে খোঁচা দিতে ছাড়ছে না বিরোধীরা। তারা বলচেন, ১৫ লক্ষ টাকা অ্যাকাউন্টে দেবেন বলেছিলেন। দিলেন ৫০০ টাকা। তবে এসব রাজনীতির কচকচি শুনতে রাজি নন জনধন অ্যাকাউন্ট হোল্ডার  মহিলারা। তাদের মতে,বিপদের দিনে ৫০০ টাকাও বড় অঙ্ক। তাই মোদীকে নমস্তে জানিয়েছেন তাঁরা।