কিছুদিন আগে প্রয়াত হয়েছেন নবনীতা দেবসেন। সেই খবর পেয়ে গভীর শোকাহত হয়েছিলেন তিনি। তার তিন মাস পরেই চলে গেলেন বাংলার কৃতি মহিলাদের মধ্যে আরেক উজ্জ্বল নক্ষত্র কৃষ্ণা বসু। শনিবার সকাল ১০টা ২০ নাগাদ ই এম বাইপাসের ধারে একটি বেসরকারি হাসপাতালে তাঁর মৃত্যু হয়। বয়স হয়েছিল ৮৯ বছর।

আরও পড়ুন: ভগবান রামকে এবার টেক্কা দেবেন তাঁর ভক্ত, বিশ্বের সবচেয়ে বড় হনুমান মূর্তি তৈরি হচ্ছে এদেশেই

একাধারে শিক্ষাবিদ ও রাজনীতিবিদ ছিলেন কৃষ্ণা বসু। ৪০ বছরের অধ্যাপনা জীবনের পাশাপাশি  তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে যাদবপুর কেন্দ্র থেকে তিনবার সাংসদও হয়েছিলেন তিনি। নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর ভাইপো চিকিৎসক শিশির বসুর স্ত্রী ছিলেন কৃষ্ণা বসু। 

আরও পড়ুন: ব্যর্থ হল সব চেষ্টা, পোলবার পুলকার দুর্ঘটনায় আহত ছাত্র ঋষভের মৃত্যু

বেশ কয়েকদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন কৃষ্ণা বসু। হৃদযন্ত্রের সমস্যা নিয়ে গত চার-পাঁচদিন আগে ভর্তি হন বাইপাস সংলগ্ন এক বেসরকারি হাসপাতালে। সেখানেই শনিবার সকালে তাঁর মৃত্যু হয়। এদিন শেষ সময়ে মায়ের পাশে উপস্থিত ছিলেন তাঁর দুই ছেলে সুগত বসু ও সুমন্ত্র বসু। দুই পুত্র ছাড়াও এক কন্যা শর্মিলাকে রেখে গেলেন প্রয়াত সাংসদ। 

আরও পড়ুন: জলবায়ু পরিবর্তনের জের, সমুদ্র সৈকতে ভেসে উঠল লক্ষাধিক ঝিনুকের দেহ

জানা যাচ্ছে, এদিন প্রথমে বাসভবনে নিয়ে যাওয়া হবে কৃষ্ণা বসুর মরদেহ। এরপর নেতাজি ভবনে নিয়ে যাওয়া হবে তাঁকে। সেখানে শেষশ্রদ্ধা জানানোর জন্য দীর্ঘক্ষণ শায়িত থাকবে কৃষ্ণা বসুর দেহ। বিকেলে কেওড়াতলা মহাশশ্মানে শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে।