লকডাউনে বাইরে বেরোনোর কারণ জিজ্ঞাসা করায় যুবতীর হামলার মুখে পড়লেন পুলিশ অফিসার। অভিযোগ,বিধাননগরে পিএনবির কাছে অ্যাপ ক্যাব দাঁড় করাতেই রেগে যান ওই যুবতী। কেন বাইরে বেরিয়েছেন জানতে চাইলেই পুলিশের উর্দিতে মুখের লালা লাগিয়ে দেন তিনি। এমনকী অশ্রাব্য় ভাষায় কথা বলেন। সংবাদ মাধ্য়মের ক্যামেরাতে ধরা পড়ে সেই ছবি।  পরে একজন সরকারি আধিকারিকের ওপর হামলার চেষ্টা ও গালিগালাজ দেওয়ার অভিযোগে ওই যুবতীকে আটক করা হয়। সঙ্গে আটক করা হয়েছে গাড়ি সহ ওই অ্যাপ ক্য়াবের চালককে।  

আপাত স্বস্তি রাজ্য়ে,৪৬ জনের লালারসে পাওয়া গেল না করোনা.

জানা গিয়েছে, এদনি লকডাউনের জন্য় পিএনবি-র সামনে ডিউটি দিচ্ছিলেন সাব ইনস্পেক্টর সুমন ভট্টাচার্য। সাড়ে বারোটা নাগাদ  একটি অ্যাপ ক্যাব দেখতে পয়েই গাড়ি আটকান তিনি। পুলিশের দাবি, ড্রাইভার ও যাত্রীরা কোন গুরুত্বপূর্ণ কাজে বাইরে বেরিয়েছেন তা জানতে চান তিনি। কিন্তু প্রথমে কোনও সদুত্তর দেননি ওই যুবতী  ও তাঁর বন্ধু। 

পরে তাঁর বন্ধু জানান, ওষুধ কিনতে বেরিয়েছেন তারা। এরই মদ্য়ে হঠাৎই গাড়ি থেকে বেরিয়ে পুলিশ অফিসারেক গালিগালাজ করেন ওই যুবতী। তাতেও কাজ না হওয়ায় অন ডিউটি অফিসারের বুকে লালা লাগিয়ে দেন তিনি। যুবতী দাবি  করেন, শরীর অসুস্থ তাঁর। মুখ দিয়ে তাই রক্ত বেরোচ্ছে। পুলিশকে বলা সত্ত্বেও তাদের গাড়ি আটকে রাখা হচ্ছিল। তাই রক্তের নমুনা উর্দিতে লাগিয়ে বুঝিয়ে দিয়েছেন তিনি।  

স্বস্তিতে পরিবার,দমদমের মৃতের সহকর্মীর করোনা নেগেটিভ.

যুবতীর  বন্ধু জানান, যুবতী জ্বরে আক্রান্ত। তাই পিকনিক গার্ডেন থেকে তারা ফিরছিলেন। বার বার বলা সত্ত্বেও পুলিশ কথা শুনছিল না। তাই এরকম একটা পরিস্থিতিতে মাথা ঠিক রাখতে পারেননি যুবতী। পুলিসের সঙ্গে বাজে ব্যবহার করে বসেন। গতকাল থেকে আগামী ২১ দিনের জন্য় সারা দেশে লকডাউন শুরু হয়েছে। খোদ এই লকডাউনের ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কিন্তু তা সত্ত্বেও দেখা যাচ্ছে লক ডাউন ভেঙে রাস্তায় বেপরোয়াভাবে রাস্তায় বেরোচ্ছে মানুষ।

দিদির পাশে দাদা, করোনা যুদ্ধে সামিল হবে ইডেন.