বিদ্য়াসাগরের মূর্তি উন্মোচন করতে এসে মঞ্চে উঠে সন্দেশখালি নিয়ে মুখ খুললেন মমতা। 
 
এদিন হেয়ার স্কুলের মঞ্চ থেকে বলেন, "আমি মৃত্যুকে সমর্থন করি না। মিডিয়া বিজেপির পকেটে চলে গিয়েছে। মিডিয়াকে কিনে নিয়েছে বিজেপি। আদালতকে কিনে নিয়েছে বিজেপি। মানুষ কোথায় যাবে!"

সন্দেশখালির দুই বিজেপি কর্মী সুকান্ত মণ্ডল, প্রদীপ মণ্ডল তপন মণ্ডলের প্রসঙ্গও মমতা নিজেই আনলেন। বললেন, "ওরা নিজেদের গুলিতে মারা গিয়েছে। জগদ্দলে কালও আমাদের দু'জন কর্মী খুন হয়েছে ।

এর পরেই মমতা চিফ সেক্রেটারি মলয় দে-কে নির্দেশ দেন ভোট পরবর্তী হিংসায় যারা মারা গিয়েছে রাজনীতির রঙ না দেখে তাঁদের পরিবারকে দুর্যোগ মোকাবিলা দফতর তথা ত্রাণ তহবিল থেকে টাকা দিতে। 


এদিন মঞ্চ থেকে গণমাধ্যমকে আরও একবার দায়িত্বহীন বলে ভর্ৎসনা করেন মমতা । বলেন, "গণমাধ্যম কেন দেখাচ্ছে না উত্তর প্রদেশে ২৫ জন যাদব মৃত্যুর খবর। বিদ্যাসাগরকে ঘিরে যে ভ্যন্ডালিজম হয়েছে আমরা  লজ্জিত। রামমোহন রায়, নজরুলকে গালাগালি দিলে সহ্য করব না।"