শুরু হযেছে বহু প্রতীক্ষিত জুনিয়র ডাক্তার ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মিটিং। মিটিং-এর শুরুতে সমাধান সূত্র খোঁজার মধ্যেই বেরিয়ে এল বেশ কিছু চাকরির খোঁজ।

এদিন এনআরএস-এর প্রতিনিধি শুরুতেই বলেন, 'আমাদের ভয়ের সঙ্গে কাজ করতে হয়। আমরা আগে চেষ্টা করেছি আপনার কাছে বার্তাটা পৌঁছে দিতে। আমরা কাজে ফিরতে চাই। আমাদের কাজের পরিবেশ দেওয়া হোক। সাধারণ মানুষ অনেক ক্ষেত্রে কষ্ট পান। আমরাও নিরূপায়।'  

মমতা এই সময়েই বলেন, 'এমারজেন্সিতে কোলাপসিপল গেট লাগানো হবে। মাত্র দুই জন ঢুকতে পারবে। সংযোগরক্ষার জন্যে এই দু'জন ঢুকবে। আমরা সময় করে পিডাব্লিউডি, মেডিক্যাল সার্ভিস কমিশনের সাহায্য নিয়ে এই কাজ করব। পেশেন্টের ডেটা দেবে জনসংযোগ আধিকারিক।' ডাক্তার নয়,রোগী নয় এক তৃতীয় পক্ষকে এখানে চাকরিতে রাখতে চাইছেন মমতা।

অনুজ শর্মাকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়ে জানাতে। তখন তিনি জানান,  '৯০০ পুলিশ ফোর্স রয়েছে। এবার আমরা পরিকল্পনা করব কী ভাবে ব্যারিকেড করা যায়, যারা  ঢুকছে যারা বের হচ্ছে তা যাতে নিয়ন্ত্রণ করা যায়।'

এই সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান একজন করে নোডাল অফিসার থাকবে হাসপাতালের দায়িত্বে। তিনি সমস্তটা দেখাশোনা করবেন।