রুশি পাঁজা : ২০১২ সালে এসএসসি মামলায় জয় পেল আজ রাজ্য সরকার। ১ হাজার পরীক্ষার্থীর মামলা খারিজ করল এদিন আদালত। ২০১১ সালের ২৯ ডিসেম্বর  এসএসসি শিক্ষক নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছিল। ৩৬ হাজার ১৪০ জনের কম্বাইন্ড মেরিট লিস্ট বেরোয়। এসএসসি ৩০ হাজার জনকে শিক্ষক পদে নিয়োগ করে৷ কিন্তু কম্বাইন্ড মেরিট লিস্টের বাকি ৬ হাজার জনকে নিয়োগ করার জন্য হাইকোর্টে কয়েকশো মামলা দায়ের হয়। কিন্তু এদিন বিচারপতি রাজশেখর মান্থা রায় দেন, কম্বাইন্ড মেরিট লিস্ট চূড়ান্ত নিয়োগ তালিকা নয়।

২০১১ সালের ২৯ ডিসেম্বর এসএসসি পঞ্চম থেকে দশম শ্রেণিতে শিক্ষক নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছিল। ২০১২ সালে লিখিত পরীক্ষা হয়৷ পরের বছর প্যানেল তালিকা বেরোয়। ৩৬ হাজার ১৪০ জনের কম্বাইন্ড মেরিট লিস্ট বেরোয়। এসএসসি নিয়োগ করে ৩০ হাজার জনকে। কিন্তু মিলন মাইতি, পারুল নস্কর সহ প্রায় হাজার খানেক পরীক্ষার্থী হাইকোর্টে মামলা করেন বাকিদের নিয়োগের জন্য৷

তাদের আইনজীবী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের দাবি, বহু পরীক্ষার্থীর বিএড না থাকা সত্ত্বেও নিয়োগ করা হয়েছে৷ ৪৯৯ জন পরীক্ষার্থীর যোগ্যতা না থাকা সত্ত্বেও চাকরি পেয়েছে৷ আর কম্বাইন্ড মেরিট লিস্ট একটাই প্যানেল তালিকা। তাহলে বাকি প্রার্থীরা চাকরি পাবে না কেন? কিন্তু কমিশন জানিয়ে দেয়, ৩৬ হাজার ১৪০ জনের কম্বাইন্ড মেরিট লিস্ট আদতে মেধা তালিকা। ওটা কোনো নিয়োগ তালিকা নয়। আদালত সব পক্ষের বক্তব্য শুনে এদিন রায় দেয়, কম্বাইন্ড মেরিট লিস্ট চূড়ান্ত নিয়োগ তালিকা নয়।