কোভিডে ভয়াবহ অবস্থার জেরে রাজ্যে এবার কার্যত লকডাউন বাংলায়। রবিবার থেকে আগামী ৩০ মে ১৫ দিনের জন্য জরুরী পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত দফতরগুলি ছাড়া সকল সরকারি, বেসরকারি দফতর বন্ধ রাখার কথা ঘোষণা করল নবান্ন। 

আরও দেখুন, Live Covid 19- করোনায় কার্যত লকডাউন রাজ্যে, কোভিডে প্রয়াত মুখ্যমন্ত্রীর ভাই, নন্দীগ্রাম পরিদর্শনে রাজ্যপাল 

 

 


করোনায় রাজ্যে লাগামছাড়া সংক্রমণ এবং মৃত্যু ঘটেই চলেছে। শুক্রবারের স্বাস্থ্য ভবনের করোনা বুলেটিন অনুযায়ী,রাজ্যে একদিনে মৃত ১৩৬ জন এবং সংক্রমণ ২০ হাজার ৮৪৬ জন। এই পরিস্থিতিতে আরও কড়াকড়ি চালু করল রাজ্য সরকার। নবান্নে সাংবাদিক বৈঠক করে তার ঘোষণা করেছেন মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্য়োপাধ্য়ায়। তিনি জানিয়েছেন, করোনা পরিস্থিতির দিকে খেয়াল রেখেই এই সিদ্ধান্ত। তাই এই নিয়ম সকলকেই মানতে হবে। না হলে মহামারি আইনে কড়া পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

 

আরও পড়ুন, লকডাউনে চরম আর্থিক অনটন, স্ত্রী-তিন কন্যাকে আগুনে পুড়িয়ে আত্মঘাতী স্বামী  

 

 

রাজ্য সরকার এদিন ঘোষণা করে জানিয়েছে যে, স্বাস্থ্য, আদালত, বিদ্যুৎ, পানীয় জল, সংবাদমাধ্যম, সাফাই, পেট্রোল পাম্প, গাড়ির যন্ত্রাংশের মতো জরুরি পরিষেবা প্রদানকারী পরিষেবা শুধমাত্র চালু থাকবে। লোকাল ট্রেন আগেই বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। এবার বাস-মেট্রো-ফেরি পরিষেবাও সম্পূর্ণ রূপে বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। জরুরী প্রয়োজন না হলে ট্য়াক্সি এবং অটোও চলাচল করবে না। এবং আগের মতোই বন্ধ থাকবে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। পাশাপাশি বন্ধ থাকবে শপিং মল, স্পা, সিনেমা হল, শরীরচর্চা কেন্দ্র, সুইমিং পুল। 

আরও পড়ুন, কোভিডে একদিনে ৪ চিকিৎসকের মৃত্যু, উদ্বেগ বাড়ল স্বাস্থ্য দফতরের 

 

 


সকাল ১০ টা থেকে বিকেল ৫ টা অবধি খোলা থাকবে মিষ্টির দোকান। সকাল ৭ টা থেকে সকাল ১০ টা মুদিখানা, রুটি-ডিম-মাংস-দুধের দোকান খোলা থাকবে। সমস্ত পণ্য়ের হোম ডেলিভারি, ই -কর্মাস চালু থাকবে। ওষুধ-চশমার দোকান সাধারণভাবে খোলা থাকবে। ব্যাঙ্ক খোলা থাকবে, তবে সকাল ১০ টা থেকে দুপুর দুটো অবধি কাজ চলবে। রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংষ্কৃতিক, সকল জমায়েতে নিষেধাজ্ঞা। চা বাগানে ৫০ শতাংশ কর্মী উপস্থিত থাকতে পারবেন। জুটমিলে সর্বোচ্চ ৩০ শতাংশ উপস্থিতি এবং রাত ৯ টা থেকে সকাল ৫ টা অবধি বাড়ির বাইরে সকল গতিবিধিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।