লকডাউনে পরিচারিকারা কাজে আসছেন না। কারণ রাজ্য় জুড়েই চলছে কড়া নজরদারী। সরকার থেকে বলাই হয়েছে জরুরী পরিষেবা ছাড়া বাইরে বেরিয়ে লকঢাউনের নিয়ম ভাঙলে কড়া শাস্তি হবে। তাই পরিচারিকারও নিরুপায়। তারা ভালও বাবেই নিয়ম পালন করছে। তাই তাঁদের মাসের মাইনে  পুলিশের মাধ্যমে বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার উদ্যোগ নিল টেকনো সিটি থানার নিউটাউন ডিএলফ হাইটস আবাসনের বাসিন্দারা।

আরও পড়ুন, ওষুধ খাওয়ার জলও পেলেন না করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি, ভয়ঙ্কর অভিযোগ বেলেঘাটা আইডিতে

লক ডাউনের ষষ্ঠ দিন। বাড়িতে পরিচারিকা কাজে আসছেন না। আসবেই বা কি করে কড়া নির্দেশিকা সরকারের। লকডাউনে বাড়ি থেকে বেরোনো যাবে না। তাই কাজে যাচ্ছেন পরিচারিকারা। এরকম পরিস্থিতিতে পরিচারিকারা কাজে না আসলেও তাঁদের মাসের মাইনে  পুলিশের মাধ্যমে তাঁদের বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার উদ্যোগ নিল টেকনো সিটি থানার নিউটাউন ডিএলফ হাইটস আবাসনের বাসিন্দারা।

আরও পড়ুন, শনিবার সকাল থেকেই কলকাতা সহ জেলায় জেলায় চালু বাস পরিষেবা, জানুন বিস্তারিত

অপরদিকে লকডাউনেও ভারতে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে দেশ জুড়ে লকডাউন শুরু হয়েছে বটে, কিন্তু, দেশে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যাটা ক্রমেই উদ্বেগজনক পর্যায়ে পৌঁছে যাচ্ছে। দেশে এখনও পর্যন্ত মোট ৮৭৩ জন সংক্রমিত হয়েছেন।  গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৪৯ জন। শনিবার নতুন করে সংক্রমিত হয়েছেন ৩৯ জন। ইতিমধ্যেই মৃত্যু হয়েছে ১৯ জনের। তবে সুস্থও হয়ে উঠেছেন ৭৯ জন।

আরও পড়ুন, বাংলার করোনায় দিল্লির গাফিলতি,তেহট্টের আক্রান্ত নিয়ে তথ্য় দেয়নি কেন্দ্র