পুজোর আগেই ভয়াবহ বিস্ফোরণে কেঁপে উঠতে পারে কলকাতা হাইকোর্ট চত্বর। ৩০ সেপ্টেম্বর এই সিরিয়াল বিস্ফোরণ ঘটানো হবে বলে দাবি করেছে হরদর্শন সিং নাগপাল নামে এক জনৈক ব্যক্তি। হরদর্শন সিং নাগপালের নামে লেখা এই চিঠি কলকাতা হাইকোর্টে বুধবারই পৌঁছয়। যদিও চিঠি-তে ৯ সেপ্টেম্বরের তারিখ উল্লেখ রয়েছে। পরপর বিস্ফোরণের হুমকি দিয়ে এই চিঠি-টি বুধবার সন্ধ্যায় কলকাতা হাইকোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল-এর দফতরে পৌঁছয়। এরপর থেকেই এই রহস্যময় এবং হুমকি ভরা চিঠি নিয়ে পুলিশ তদন্তও শুরু করেছে। খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে চিঠির প্রেরককে। 

পরপর বিস্ফোরণের হুমকিভরা এমন একটি চিঠি যে কলকাতা হাইকোর্টে এসেছে তা বৃহস্পতিবারই সামনে আসে। রেজিস্ট্রার জেনারেল রবীন্দ্র সামন্তর দফতর থেকে এই হুমকিভরা চিঠি-র উল্লেখ করে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রককে একটি চিঠি পাঠানো হয়। এই চিঠিতে রেজিস্ট্রার জেনারেল কলকাতা হাইকোর্টের প্রধানবিচারপতির পক্ষ নিয়ে বিষয়টি-তে যথোপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণের আর্জি জানিয়েছেন। কলকাতা হাইকোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেলের দফতর থেকে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রককে দেওয়া এই চিঠির মেমো নম্বর  হল ৫০২৪আরজি২৫-০৯-২০১৯। 

রেজিস্ট্রার জেনারেলের দফতর থেকে এই চিঠিতে জানানো হয়েছে যে, ৯ সেপ্টেম্বরের তারিখ দেওয়া একটি চিঠিতে হরদর্শন সিং নাগপাল নামে এক ব্যক্তি তার ছেলে-কে সঙ্গে করে কলকাতা হাইকোর্টে পরপর বিস্ফোরণ ঘটানোর হুমকি দিয়েছে। ৩০ সেপ্টেম্বর এই বিস্ফোরণের দিন বলেও নাকি হরদর্শন দাবি করেছে। 

কলকাতা হাইকোর্ট বরাবরই একটি হাই সিকিউরিটি জোন। এখানে এর আগেও একাধিকবার নানা ধরনের ঘটনা ঘটানোর হুমকি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু, তার কোনওটাই বাস্তবে ঘটেনি। তবে, পুজোর ঠিক আগে কলকাতা হাইকোর্টে পরপর বিস্ফোরণের হুমকির পিছনে আদৌ কোনও সঠিক কোনও ষড়যন্ত্র রয়েছে না কি এটা নিছকই হুমকি- তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।