সংবাদমাধ্যমের সামনে কোনও আলোচনা হবে না। এনআরএস হাসপাতালে গিয়ে জুনিয়র চিকিৎসকদের স্পষ্টই জানিয়ে এলেন রাজ্যের স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিকর্তা প্রদী মিত্র। ফলে, সরকারের এই শর্ত মেনে আন্দোলনকারী জুনিয়র চিকিৎসকরা নবান্নের বৈঠকে যাবেন কি না, তা নিয়ে ফের সংশয় তৈরি হল। কারণ এ দিন সকালেও জুনিয়র চিকিৎসকরা জানিয়ে দিয়েছেন, সংবাদমাধ্যমের উপস্থিতি ছাড়া তাঁরা সরকারের সঙ্গে কোনও বৈঠক হবে না। 

এ দিন সকালে আন্দোলনকারী চিকিৎসকরা দাবি করেন, নবান্নে আজ বৈঠক করার জন্য তাঁদের কাছে কোনও চিঠি যায়নি। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই স্বাস্থ্য দফতরের পক্ষে থেকে নবান্নে বৈঠকে যাওয়ার জন্য আহ্বাণ জানিয়ে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে চিঠি দেওয়া হয়েছিল এনআরএসের জুনিয়র চিকিৎসকদের। স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিকর্তা প্রদীপ মিত্রও এনআরএসে গিয়ে জুনিয়র চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলে সরকারের অবস্থানের কথা জানিয়ে আসেন। তিনি জানান, জুনিয়র চিকিৎসকরা চিঠি পেয়েছেন কিনা, মুখ্যমন্ত্রী নিজে সেই খোঁজ নেন। একই সঙ্গে তিনি জানিয়ে জেন, বৈঠকের শেষে সংবাদমাধ্যমের সামনে তার বিষয়বস্তু তুলে ধরা না আপত্তি না থাকলেও বৈঠক চলাকালীন কোনও সংবাদমাধ্যমকে সেখানে থাকতে দিতে রাজি নয় রাজ্য। 

এর পরেই ফের নিজেদের মধ্যে বৈঠকে বসেছেন আন্দোলনকারীরা। কারণ দাবি ছিল, বৈঠকের লাইভ কভারেজ করতে হবে। কোনও রুদ্ধদ্বার বৈঠকে যেতে তাঁরা রাজি নন। ফলে, সরকারের এই শর্ত জুনিয়র চিকিৎসকরা মানবেন কি না, সেটাই এখন দেখার। নবান্নের তরফে অবশ্য বৈঠকের জন্য যাবতীয় প্রস্তুতি সাড়া। সংবাদমাধ্যমের উপস্থিতি ছাড়া বৈঠক নিয়ে আন্দোলনকারীদের সব দাবিই সরকার মানতে রাজি বলেও জানিয়েছেন স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিকার্তা।